দিনাজপুরে মোবাইল ফোনে ডেকে এনে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২

0
60
dinajpur

dinajpurমোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক যুবতীকে ডেকে এনে তিন মাস আটকে রেখে ধর্ষণ করার পর জোর করে বের করে দেওয়ার সময় স্থানীয় জনগণ দুই প্রতারককে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। প্রতারণার শিকার যুবতীর নাম সাইমুন নাহার (১৯)। সে লক্ষিপুর জেলার রামগতি উপজেলার চর বাঘাতি গ্রামের আব্দুল খালেকের কন্যা।

গ্রেপ্তার হওয়া যুবকের নাম জয়নুদ্দিন জৎ। সে দিনাজপুর শহরের উপশহর ২নং ব্লকের বাবু মিয়ার ছেলে ও তার বন্ধু বাড়ির মালিক রানা। সে শহরের উপশহর ৭নং ব্লকের বাসিন্দা।

দিনাজপুর কোতয়ালী থানার এস আই বিদ্যুৎ সাহা জানান, জয়নুদ্দিন জৎ এর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সাইমুন নাহারের পরিচয় হয়। এরপর থেকে প্রায় সময় তারা মোবাইলে কথা বলত। এক সময় তাদের মধ্যে মন দেওয়া নেওয়া শুরু হয়। সেই সুযোগ নিয়ে জয়নুদ্দিন জৎ তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দিনাজপুরে ডেকে নিয়ে আসে। সাইমুন দিনাজপুরে এসে পৌঁছালে তাকে শহরের উপশহর ৭ নং ব্লকের রানার বাসায় আটকে রেখে তিন মাস থেকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে আসছিল। এরই মধ্যে সাইমুন বিয়ের জন্য চাপ দিলে গত শুক্রবার রাতে নির্যাতন করে তাকে জোরপূর্বক তাড়িয়ে দেওয়ার সময় সে চিৎকার শুরু করলে এলাকার লোকজন টের পায়। এ সময় স্থানীয় জনগণ জয়নুদ্দিনজৎ ও তার বন্ধু বাড়ির মালিক রানাকে আটক করে থানায় সংবাদ দেয়। পুলিশ গিয়ে তাদেরকে আটক করে এবং সাইমুন নাহারকে উদ্ধার করে।

এ ব্যাপারে সাইমুন নাহার বাদী হয়ে কোতয়ালী থানায় শিশু ও নারী নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছে।