পাজেরো স্পোর্টস উৎপাদনে জাপানের সহায়তা চান শিল্পমন্ত্রী

পাজেরো স্পোর্টস। ছবি: সংগৃহিত

বাংলাদেশের জনগণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে পাজেরো স্পোর্টস্ ও মিটসুবিসি পিকআপ উৎপাদনে জাপানের সহায়তা চেয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তিনি বলেন, জাপানের সহায়তায় দীর্ঘ দিন ধরে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড গাড়ি সংযোজন করলেও বর্তমান সরকার দেশেই গাড়ি উৎপাদনের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে।

পাজেরো স্পোর্টস। ছবি: সংগৃহিত
পাজেরো স্পোর্টস। ছবি: সংগৃহিত

 

সোমবার শিল্প মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত মাসাতো ওয়াতানাবের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

বৈঠকে তিনি বলেন, মালয়েশিয়ায় সনি কর্পোরেশনের কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এটি বাংলাদেশে স্থানান্তরের সুযোগ রয়েছে। এ কারখানায় কর্মরত অধিকাংশ শ্রমিক বাংলাদেশি ছিল উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে এটি স্থানান্তর হলে সহজেই দক্ষ শ্রমিক পাওয়া যাবে।

এসময় তিনি ঘোড়াশাল ইউরিয়া ফার্টিলাইজার ফ্যাক্টরি লিমিটেড (ইউএফএফএল) ও পলাশ ফার্টিলাইজার ফ্যাক্টরি লিমিটেডে জ্বালানি সাশ্রয়ী সার কারখানা প্রতিস্থাপনে জাপানের প্রযুক্তিগত সহায়তা কামনা করেন।

জাপান এককভাবে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন অংশীদার উল্লেখ করে আমু বলেন,  ১৯৭২ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতিতে জাপান গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। জাপানের সহায়তায় ইতোমধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয় কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানি (কাফকো), দ্বিতীয় ডাই অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি-২), বিএসটিআই’র গবেষণাগার আধুনিকায়নসহ বেশ কিছু প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।

তিনি বাংলাদেশের এসএমই শিল্পখাতে জাপানি উদ্যোক্তাদের বিনিয়োগ বাড়ানোর পরামর্শ দেন। সরকার ইতোমধ্যে জাপানের উদ্যোক্তাদের জন্য একটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে বলে জানান শিল্পমন্ত্রী।

জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রতি জাপান সবসময় অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। এ দেশে গুণগতমানের শিল্পায়নের ধারা বেগবান করতে জাপানি উদ্যোক্তারা শুরু থেকেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। তিনি দ্বি-পাক্ষিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কাফকো প্রকল্পকে সাফল্যের প্রতীক হিসেবে উল্লেখ করেন। বাংলাদেশে জ্বালানি সাশ্রয়ী সার কারখানা স্থাপনের পাশাপাশি এসএমই শিল্পখাতের উন্নয়নে জাপানের সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান এই নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত।

বৈঠকে শিল্প সচিব মোঃ মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, অতিরিক্ত সচিব বেগম পরাগ, বিসিআইসি’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবালসহ শিল্প মন্ত্রণালয় ও জাপান দূতাবাসের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।