ঝাড়খণ্ডের মন্দিরে পদদলিত হয়ে নিহত ১১

India
ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘরের বৈদ্যনাথ মন্দিরে আজ সোমবার সকালে শিবের মাথায় গঙ্গজল দিতে হাজির হয়েছেন ভক্তরা। সেখানে পদদলিত হয়ে মারা গেছে অন্তত ১১ জন।

ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘরে একটি মন্দিরে পদদলিত হয়ে অন্তত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ সোমবার ভোর ৫টার দিকে বৈদ্যনাথ মন্দিরের এই ঘটনায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন।

India
ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের দেওঘরের বৈদ্যনাথ মন্দিরে আজ সোমবার সকালে শিবের মাথায় গঙ্গজল দিতে হাজির হয়েছেন ভক্তরা। সেখানে পদদলিত হয়ে মারা গেছে অন্তত ১১ জন।

ঝাড়খণ্ড পুলিশের মুখপাত্র এস.এন. প্রধান জানান, নিহতদের মধ্যে একজন নারী ভক্তও রয়েছে। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন মেডিকেলে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, প্রতিবছর আগস্ট মাসে বৈদ্যনাথ মন্দিরের ভক্তরা জড়ো হয়ে শিবের মাথায় গঙ্গাজল দেয়। গতকাল রোববার রাত থেকে গঙ্গাজল দিয়ে ভক্তরা সেখানে উপস্থিত হতে শুরু করে। রাত ২টা থেকে ভক্তদের ভিড় সামলাতে মন্দিরে দায়িত্বপালন করে পুলিশ ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

ভারত সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শিবের মাথায় গঙ্গাজল দিতে আজ সোমবার ভোরে মন্দিরের গেট ভক্তদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এসময় সেখানে এক লাখের বেশি মানুষ হাজির হন। ভক্তরা দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ভিড়ের চাপে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, ভক্তদের ভিড় সামলাতে এবং তাদেরকে শৃঙ্খলাবদ্ধ রাখতে চেষ্টা করা হলেও অতিরিক্ত উপস্থিতির কারণে তা সম্ভব হয়নি।

প্রসঙ্গত, ভারতে হিন্দুদের বিভিন্ন তীর্থস্থানে প্রতিবছরই ভিড়ের চাপে পদদলনের ঘটনায় বহু মানুষের মৃত্যু হয়। ২০১৪ সালের অক্টোবরে মধ্য প্রদেশের রত্নগড়ের একটি মন্দিরে পদপিষ্ট হয়ে মারা গেছে অন্তত ৯১ জন, যাদের অধিকাংশই নারী ও শিশু। ২০১১ সালে কেরালায় আরেক তীর্থে একইভাবে শতাধিক মানুষের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিল। ২০০৭ সালে এই বৈদ্যনাথ মন্দিরে পদদলনের ঘটনায় কমপক্ষে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছিল।