ব্লগারদের সীমা লঙ্ঘন না করার পরামর্শ আইজিপির

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক

ব্লগারদেরকে সীমা লঙ্ঘন করে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার মতো লেখা না লেখার পরামর্শ দিয়েছেন পুলিশ বাহিনীর প্রধান এ কে এম শহীদুল হক।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক
পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক

গত ছয় মাসে চার ব্লগার হত্যাকাণ্ডের কোনোটিরই সুরাহা করতে না পারেনি পুলিশ। সব শেষ নিলয় হত্যার দুই দিন পর রোববার দেশজুড়ে আলোচনার মধ্যে পুলিশ সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে এই পরামর্শ দিলেন আইজিপি।

পুলিশ জিডি নেয়নি- প্রাথমিক তদন্তে নিলয়ের এমন ফেসবুক স্ট্যাটাসের সত্যতা পাওয়া যায়নি জানিয়ে এ কে এম শহীদুল হক এ সময় বলেন, বিষয়টির তদন্ত চলছে; সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিলয়ের আগে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে বইমেলা চলাকালে টিএসসির সামনে খুন হন অভিজিৎ রায়। এর কয়েক মাসের মধ্যে ওয়াশিকুর রহমান বাবুকে হত্যা করা হয় তেজগাঁওয়ে তার বাসার কাছে। তারপর সিলেটে সড়কে খুন করা হয় অনন্ত বিজয় দাশকে।

তিনটি হত্যাকাণ্ডে জঙ্গিরা জড়িত বলে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হলেও প্রকৃত খুনিদের কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। তবে এসব মামলায় কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, বাবুর হত্যাকাণ্ডস্থল থেকে জনতা দুজনকে ধরে পুলিশে দেয়।

এসব হত্যাকাণ্ড নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে আইজিপি বলেন, “এখানে আমার একটা বক্তব্য আছে। মুক্তমনা, তারা তো থাকবে। তাদের প্রতি আমার যথেষ্ট শ্রদ্ধাবোধ আছে।

“তবে আমাদের যে জিনিসটা খেয়াল রাখতে হবে। আমাদের দেশে প্রচলিত আইনে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করা অপরাধ। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতকারীর সাজা ১৪ বছর। তবে কেউ ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করলে তাকে হত্যা করতে হবে, তা মানা যায় না।”

কেউ ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করলে, তার বিরুদ্ধে মামলা হলে, তাকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান শহীদুল হক।