অমর একুশে গ্রন্থমেলা শুরু হচ্ছে কাল

0
72
বাংলা একাডেমির সংবাদ সম্মেলন
বাংলা একাডেমির সংবাদ সম্মেলন
Bangla-Academy-31.01.14--2
বাংলা একাডেমির সংবাদ সম্মেলন

প্রত্যেক বছরের মতো এবারও ফেব্রুয়ারির এক তারিখেই শুরু হচ্ছে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৪’।এবারকার বই মেলা উৎসর্গ করা হয়েছে সদ্য প্রয়াত বিচারপতি মুহাম্মাদ হাবিবুর রহমানকে।

শুক্রবার দুপুরে বাংলা একাডেমীর আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে মেলার প্রস্তুতির বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান এসব কথা বলেন।

এসময় মেলাকে সফল করতে তিনি সব রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, বাংলা একাডেমীর প্রাতিষ্ঠানিক বিভাগের পরিচালক শাহিদা খাতুন, বাংলা একাডেমীর সচিব মো. আলতাফ হোসেন, জনসংযোগ উপবিভাগের উপপরিচালক মুর্শিদুদ্দিন আহম্মদ।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এবারের মেলা বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গণ ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হবে। গ্রন্থমেলায় মোট ২৯৯টি প্রতিষ্ঠানকে ৫৩৪টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২৩২টি মূল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ৪৩২টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

বাংলা একাডেমীর ভিতরে ২৪টি শিশু-কিশোর প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ৩৩টি ইউনিট, সরকারি প্রতিষ্ঠান-মিডিয়া ও অন্যান্য ৪৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৯টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়। তাছাড়া এবারের মেলায় উন্মুক্তসহ ৫৫টি লিটল ম্যাগাজিনকে ‘লিটল ম্যাগাজিন’ কর্নারে জায়গা দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়। আর এই কর্নারটি এবার কবি খোন্দকার আশরাফ হোসেনের নামে নাম করণ করা হয়েছে।

এবারের মেলা ১ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকবে বলে জানানো হয়।তবে ছুটির দিনে এই মেলা বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা এবং ২১শে ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে বলে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মহাপরিচালক জানান, এবারের মেলা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কোনো বিদেশি অতিথি থাকছেন না। বাংলাদেশি মুকাভিনেতা পার্থ প্রতীম মজুমদার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যোগ দেবেন বলে জানান তিনি।

মেলার কাজ শেষ না হতেই উদ্বোধন বিষয়ে তিনি বলেন, শেষ সময়ে মেলা সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হওয়ায় একটু সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।তবে আগামিতে একটু আগেভাগে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে মেলার শেষ প্রস্তুতি সরেজমিনে পরিদর্শন করতে গিয়ে সংস্কৃতি বিষয়কমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর সাংবাদিকদের বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে মেলার কিছু অংশ সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে এবার। তবে আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছি যাতে কোনো সমস্যা না ঘটে। তাছাড়া গ্রন্থমেলাতে রাজনৈতিক কোনো প্রভাব পড়বে বলে মনে করেন না তিনি।এছাড়া বিরোধী দলের সমাবেশ মেলার স্বার্থে সরিয়ে নেবে বলেও মনে করেন তিনি।