ঢাবি লাইব্রেরি চত্বরে শুরু হচ্ছে জাতীয় কবিতা উৎসব

0
79
kobit

kobit“কবিতা সহেনা দানব যাতনা” এ স্লোগানকে সামনে নিয়ে আগামি ১ ও ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি চত্বরে অনুষ্ঠিত হবে “জাতীয় কবিতা উৎসব- ২০১৪”।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে “জাতীয় কবিতা পরিষদ” এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ কথা জানায়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন জাতীয় কবিতা উৎসব পরিষদের আহ্বায়ক মুহাম্মদ সামাদ। তিনি তার বক্তৃতায় বলেন, বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য ৫ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকালে সরকারি কর্মকর্তাদের হত্যা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘বিশেষ করে সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘর, দোকান-পাটে লুটতরাজ ও অগ্নিসংযোগসহ নতুন করে তাণ্ডব শুরু করেছে। আমরা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে চাই।  তাই এবার আমরা এই স্লোগান নির্ধারণ করেছি’।

তিনি আরেও বলেন, ‘কবিতা উৎসব অনুষ্ঠিত করার লক্ষ্যে ১ জানুয়ারি ২০১৪ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের দোতলায় উৎসব দপ্তর খোলা হয়েছে। সেখানে প্রতিদিন বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উৎসবের প্রস্তুতি ও কবিদের নাম নিবন্ধনের কাজ চলছে। জেলায় জেলায় উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং তারা আগামিকালের মধ্যে কেন্দ্রীয় উৎসবে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে ঢাকায় আসবেন’।

সামাদ বলেন, ১৯৮৭ সালে এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছিল জাতীয় কবিতা উৎসব। গত ২৭ বছর ধরে দক্ষিণ-দক্ষিণপূর্ব এশিয়া এবং ইউরোপ-আমেরিকা থেকে বিভিন্ন ভাষার কবিরা এই কবিতা উৎসবে অংশ নিচ্ছেন।

কবিতা পরিষদের সদস্য মুহাম্মদ সামাদ জানান, এবারের কবিতা উৎসব নিবেদিত হবে জাতীয় কবিতা পরিষদের সভাপতিমণ্ডলী ও উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কবি লুৎফর রহমান সরকার এবং পরিষদের সাবেক সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কবি দিলওয়ার এর স্মরণে।

অনুষ্ঠানে বক্ততারা বলেন, কবিতা উৎসবে একুশের গান, উৎসব সংগীত, স্বরচিত কবিতাপাঠ, আবৃত্তি, কবিতার গান ও সেমিনারের আয়োজন করা হবে। ১ ফেব্রুয়ারি উৎসব উদ্বোধনের পর পৌনে ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত বিশেষ আয়োজন থাকবে। এই আয়োজনে অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে ও ড. ফকরুল আলমের সঞ্চালনায় মূল বক্তব্য উপস্থাপন করবেন সুইডিশ লেখক অরনে রুথ এবং নরওয়ের লেখক জন ওয়াই জোনস। এ ছাড়া কবি-নাট্যকার আনিসুর রহমান রচিত ‘পোয়েট্রি ইন স্ক্যানেডিনেভিয়া: এ বেঙ্গলি রিফ্লেকশন’ শীর্ষক একটি নিবন্ধ উপস্থাপন করা হবে।

বক্তারা বলেন, কবিতা উৎসবের দ্বিতীয় দিন অর্থাৎ ২ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের ভিন্নভাষী নাগরিকদের জন্য  আয়োজন করা হবে অন্যভাষার কবিতা।

সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নরওয়ের কবি জন ওয়াই জোন্স, সুইডেনের ক্রিশ্চিয়ান কার্লসন, ভারতের অমৃত মাইতি, জাতীয় কবি পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক তারিক সুজাত, কাজী রোজী।

এসএস/সাকি/