চট্টগ্রামে ৭০ গার্মেন্টসে বেতন-বোনাসে অনিশ্চয়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
23
বেতন-বোনাসের দাবিতে আন্দোলনরত পোশাক শ্রমিকরা। ছবি সংগৃহীত

ঈদের আগে বেতন-বোনাস পরিশোধ নিয়ে চট্টগ্রামের ৭০টি পোশাক কারখানায় অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। গত তিন-চার মাস ধরে বেতন পরিশোধ করেনি এবং গত বছর ঈদে শ্রমিক অসন্তোষ হয়েছে এমন ৭০ পোশাক কারখানার তালিকা করছে চট্টগ্রাম শিল্প পুলিশ।

বেতন-বোনাসের দাবিতে আন্দোলনরত পোশাক শ্রমিকরা। ছবি সংগৃহীত
বেতন-বোনাসের দাবিতে আন্দোলনরত পোশাক শ্রমিকরা। ছবি সংগৃহীত

শিল্প পুলিশের পরিচালক তোফায়েল আহমেদ মিয়া জানান, ঈদের আগে বেতন ভাতা নিয়ে প্রতিবছরই শিল্প কারখানায় অসন্তোষ দেখা দেয়। এ নিয়ে রাস্তা অবরোধ, ভাংচুরসহ নানা ঝামেলা সৃষ্টি হয়। এ বছর এসব ঝামেলা এড়াতে নগরীর ৭০টি পোশাক কারখানার তালিকা করা হয়েছে। এসব কারখানায় ২১ হাজারের মতো শ্রমিক কাজ করছে। এসব কারখানার মধ্যে ৫৯টি বিজিএমইএ ও চারটি বিকেএমইএর অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় উভয় সংগঠনের নেতাদের সাথে আগে থেকেই আলোচনা করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, চট্টগ্রামে ১০টি শিল্প জোনে মোট ৬৩০টি পোশাক কারখানা রয়েছে। অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে ১০ জোনে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন ও গোয়েন্দা নজরদারির পাশাপাশি নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও মোবাইল টিম রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে এসব কারখানাগুলোর বক্তব্য কী এবং পোশাক কারখানার মালিকদের সংগঠনগুলো কী পদক্ষেপ নিবে সে বিষয়ে লিখিত তথ্য জানানো হচ্ছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

তবে এ বিষয়ে পোশাক প্রস্তুত ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহ সভাপতি নাসির উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বিদেশি ক্রেতাদের চাপে অধিকাংশ কারখানা শ্রমিকদের বেতন-ভাতা ও সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে সচেতন। ফলে প্রতিবারের মতো এবারের ঈদে তেমন কোন অসন্তোষ না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। বিজিএমইএর পক্ষ থেকেও সে বিষয়ে জোর দিয়ে কারখানাগুলোর সাথে কথা বলা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।