আনন্দের ড্রেজারে হবে নৌপথ পুনরুদ্ধার

0
39

Anonda_Shippingদেশে বিভিন্ন নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনা ও তা রক্ষা করতে দেশীয় প্রতিষ্ঠান আনন্দ শিপইয়ার্ডে তৈরি ড্রেজার ব্যবহার করবে সরকার। ব্যবহার করা হবে এ প্রতিষ্ঠানের তৈরি করা ক্রেন বোট, টাগ বোট, অফিসার হাউজ বোট এবং ক্রু-হাউজ বোটসহ অন্যান্য সরঞ্জাম। গত বছর সরকারের সঙ্গে করা এক চুক্তির ভিত্তিতে এসব উপকরণ তৈরি করছে আনন্দ।
বুধবার নৌপথ উন্নয়নের এসব সরঞ্জাম তৈরির অগ্রগতি দখেতে আনন্দ শিপইয়ার্ড পরিদর্শন করেন নৌ-পরিবহণ মন্ত্রী শাহজাহান খান।

আনন্দ শিপইয়ার্ড যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বখ্যাত ড্রেজার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান এলিকট ড্রেজেস এলএলসির (Ellicott Dredges LLC) যৌথ উদ্যোগের প্রতিষ্ঠান আলোচিত সরঞ্জাম তৈরির কাজ করছে। আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতিসহ ২টি ১৬ ইঞ্চি ড্রেজার ১২৩ কোটি এবং ১টি ১৮ ইঞ্চি ড্রেজারের মূল্য ৩৩ কোটি টাকা।

‘১০টি ড্রেজার, ক্রেন বোট, টাগ বোট, অফিসার হাউজ বোট এবং ক্রু-হাউজ বোটসহ অন্যান্য সরঞ্জাম-যন্ত্রপাতি সংগ্রহ’ প্রকল্পের আওতায় ২টি ১৬ ইঞ্চি কাটার সাকশন ড্রেজার এবং ১৮টি সহায়ক জলযানসহ আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি সংগ্রহের এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় গত বছরের ১৭ এপ্রিল। তাছাড়া ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর ১টি ১৮ ইঞ্চি কাটার সাকশন ড্রেজারসহ আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি সংগ্রহের জন্য অন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

পরিদর্শন শেষে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী কাজের অগ্রগতিতে সন্তুষ প্রকাশ করেন। তিনি দেশের জাহাজ নির্মাণ শিল্পের উন্নয়নে সরকার প্রয়োজনীয় সব সহায়তা দেবে বলে জানান। তিনি বাংলাদেশের প্রথম সমুদ্রগামী জাহাজ রপ্তানির মাধ্যমে নতুন সম্ভাবনার দরজা খুলে দেওয়ায় আনন্দ শিপইয়ার্ডকে ধন্যবাদ জানান।

আনন্দ শিপইয়ার্ডের চেয়ারম্যান ডঃ আব্দুল্লাহেল বারী বলেন, সময়মত ড্রেজার ও অন্যান্য উপকরণ সরবরাহে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তারা। প্রধানমন্ত্রীর অনুসৃত এই ড্রেজার সংগ্রহ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে নদীমাতৃক বাংলাদেশের নদী সমূহের নাব্যতা রক্ষা এবং নৌপথের উন্নয়নের মাধ্যমে পরিবেশ বান্ধব যোগাযোগের ব্যবস্থা প্রসারিত হবে।’

পরিদর্শনকালে মন্ত্রীর সঙ্গে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ডঃ মোঃ শামসুদ্দোহা খন্দকার, সদস্য প্রকৌশল এবং পদস্থ প্রকৌশলীরা উপস্থিত ছিলেন।