বছরের সর্বোচ্চ লেনদেন ডিএসইতে

0
60
DSE-UP
ডিএসই সূচক ঊর্ধ্বমুখী

ডিএসই সূচক ঊর্ধ্বমুখীচলতি বছরের সর্বোচ্চ লেনদেন করল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। রোববার ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে আটশো ৫৯ কোটি টাকার। এর আগে এই বছরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে ২২ জানুয়ারি ৮৩৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকার। নতুন বছরের শুরু থেকেই পুঁজিবাজার চাঙ্গা হয়ে উঠতে শুরু করে। গত সপ্তাহেও ডিএসইতে মূল্যসূচক এবং লেনদেন আগের সপ্তাহের তুলনায় বাড়ে। আজ   সপ্তাহের প্রথম দিনেই নতুন বছরের সর্বোচ্চ চমক  দেখালো  ডিএসই।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, নতুন বছরের শুরু থেকেই বাজার পরিস্থিতি ভালো হতে শুরু করে। এছাড়া বর্তমানে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকায় পুঁজিবাজারে নতুন আশা নিয়ে বিনিয়োগ করছে বিনিয়োগকারীরা।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, রোববার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ডিএসইএক্স সূচক বেড়েছে ১ দশমিক ১৮ শতাংশ বা ৫৫ পয়েন্ট। এই সূচক অবস্থান করছে ৪ হাজার ৭৫৮ পয়েন্টে। ডিএসইএস সূচক ১ দশমিক ০৯ শতাংশ বা ১০ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৯৮৭ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৫২ শতাংশ বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৬৭২ পয়েন্টে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৫৪ শতাংশ কোম্পানির শেয়ার দর বেড়েছে।

ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৯৪ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৬১ টির কমেছে ১১৪ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯ টির।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে (টাকার পরিমানে) থাকা দশ কোম্পানি হল- স্কয়ারফার্মা, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, পদ্মা অয়েল, ওরিয়নফার্মা, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, গ্রামীণফোন,লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স এবং তিতাস গ্যাস।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)সিএসই সার্বিক সূচক ২২৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৪ হাজার ৮১১ পয়েন্টে। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২৩৬ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৮ টির কমেছে ১০২ টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬ টির।

এমআরবি/