রাজশাহীতে গ্লাডিওলাস ফুল চাষে সাফল্য

0
223
rajshahi flower

rajshahi flowerক্ষেতে হয় ধান নয়তো পাট আর মৌসুমভেদে বিভিন্ন সবজি। কিন্তু এই চিরাচরিত ধারণা থেকে বের হয়ে রাজশাহীর গোদাগাড়ির কৃষকরা আজকাল গ্লাডিওলাস ফুলের চাষ করছেন। যদিও এখন অল্প পরিসরে পরীক্ষামূলকভাবে গ্লাডিওলাস ফুলের চাষ শুরু করেছেন তারা তবে আগামি বছর বাণিজ্যিকভাবে ব্যাপকহারে এই ফুল চাষের সম্ভাবনা রয়েছে।

গোদাগাড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর দ্বিতীয় শস্য বহুমুখীকরণ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার কদমশহর, বিজয়নগর, কাদিপুর ও আমানতপুর এলাকার পাঁচজন কৃষক ১৩ শতক জমিতে প্রদর্শনী আকারে পরীক্ষামূলকভাবে বারি-৩ ও ৫ জাতের গ্লাডিওলাস ফুলচাষ করেছেন।

কদমশহরের কৃষক আখলাকুর রহমান বাবু বলেন, উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর থেকে বারি-৩ ও ৫ জাতের গ্লাডিওলাস ফুলের করম সংগ্রহ করি। ৩ শতক জমিতে ফুল চাষ করতে গিয়ে খরচ হয়েছে ১০ হাজার টাকা। ১টি গাছ থেকে ১টি ফুলের স্টিক ও ২টি করম রয়েছে। ১টি ফুলের স্টিক ৮ টাকা এবং ১টি করম ৩ টাকা দরে বিক্রি করেছি। জমিতে ২ হাজার ২০০টি ফুলের চারা গাছ রয়েছে। গাছ ভালো থাকায় ফুলের ফলনও ভালো হয়েছে। ফুল চাষে কারিগরিভাবে সহায়তা করেছে উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা অতনু সরকার।

উপজেলার আমানতপুরের কৃষক শফিকুল ইসলাম কালু গত বছর পাঁচ কাঠা জমিতে রজনিগন্ধা ফুল চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন। তিনি জানান, রজনিগন্ধার চেয়ে গ্লাডিওলাস ফুলের চাহিদা বেশি থাকায় চলতি বছর আড়াই শতক জমিতে গ্লাডিওলাস ফুলের চাষ করেছেন। জমিতে ফুলের চারা ভালো রয়েছে। ২ হাজার ফুলের চারা থাকায় ২০ হাজার টাকার ফুল বিক্রি করবেন। ফুল চাষে খরচ হয়েছে ৮ হাজার টাকা। এখন পর্যন্ত তিনি ফুল বিক্রি করেছেন ৮ হাজার টাকার।

উপজেলার বিজয়নগরের কৃষক শফিকুল ইসলাম চলতি বছর ৩ শতক জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে গ্লাডিওলাস ফুলের চাষ করছেন। তবে আগামি বছর থেকে বাণিজ্যিকভাবে জমিতে বেশি করে গ্লাডিওলাসসহ বিভিন্ন জাতের ফুলের চাষ করবেন বলে  তিনি জানান।

এ প্রসঙ্গে গোদাগাড়ি কৃষি কর্মকর্তা ড.সাইফুল আলম বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব পড়ায় ধান ও গমচাষ করতে গিয়ে তেমন লাভবান হচ্ছে না কৃষকরা। তাই বিকল্প ফসল চাষের দিকে ঝুঁকছেন কৃষকরা।

জলবায়ু মোকাবিলা করে ফসল চাষ করে কৃষকরা যাতে লাভবান হন এজন্য উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর গ্রীষ্মকালীন ও শীতকালীন উচ্চ ফলনশীল জাতের শাকসবজিসহ ফসল চাষে গুরুত্ব দিয়ে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। এরই অংশ হিসেবে উপজেলার ৫ জন কৃষককে ফুল চাষের ওপর প্রশিক্ষণ দিয়ে বারি-৩ ও ৫ জাতের গ্লাডিওলাস ফুলের করম সরবরাহ করা হয়। ফুলচাষ অত্যন্ত লাভজনক। মাত্র ৬০-৭০ দিনের মধ্যে ফুলের ফলন পাওয়া যায় এবং সারাবছরই ফুলচাষ করা সম্ভব বলে তিনি জানান।

কেএফ