দিনাজপুরে বন্ধ থাকা খনি থেকে পাথর উত্তোলন শুরুর উদ্যোগ

0
87
dinajpur

dinajpurদিনাজপুরে শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে দীর্ঘ ২ মাস থেকে বন্ধ থাকা মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে পাথর উত্তোলনের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। সংকট নিরসনের লক্ষ্যে সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহামান এমপি আন্দোলনরত শ্রমিক, খনি কর্তৃপক্ষকসহ স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধা সাড়ে ৮টার সময় খনির প্রশাসনিক ভবনের সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জানা যায়, মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রায় ৩০৮ জন শ্রমিকের স্থায়ী নিয়োগ, ছাটাইকৃত শ্রমিকদের পুর্নবহাল, সরকার ঘোষিত শতকরা ২০ ভাগ মহার্ঘভাতা প্রদান, ডিপ্লোমাধারী শ্রমিকদের চাকুরি নিয়মিতকরণ ও শ্রমিক ছাটাই বন্ধের ৫ দফা দাবিতে গত ২৫ নভেম্বর থেকে শ্রমিক ধর্মঘট শুরু হয়। আর এতে করে দেশের একমাত্র কঠিন শিলা খনির পাথর উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়।

গত ২০০৭ সালের মে মাস থেকে খনি থেকে উন্নত মানের পাথর উত্তোলন কাজ শুরু হয়। এ পর্যন্ত খনি থেকে উত্তোলন করা হয়েছে প্রায় ১৯ লাখ মে.টন উন্নত মানের পাথর। পাথরের মান ভালো হওয়ায় দেশের সরকারি ও বেসরকারি খাতে ব্যাপক চাহিদা ও বাজার তৈরি হয়। কিন্তু গত ২ মাস শ্রমিক ধর্মঘটে উৎপাদন বন্ধ থাকায় গ্রাহকরা আমদানি করা নিম্ন মানের ভারতীয় পাথরের দিকে ঝুকছে।

ক্রেতাদের কাছ থেকে জানা যায়। এদিকে, খনির অচলাবস্থা নিরসনে শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে খনি কর্তৃপক্ষ উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সরকার দলীয় নেতারা কয়েক দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু দাবির ব্যাপারে কো্নো অগ্রগতি না হওয়ায় ধর্মঘট চলার সঙ্গে খনি অবরোধ করে রাখে ৬ জানুয়ারি। সে সময় খনির অভ্যন্তরে শতাধিক কর্মকর্তা কর্মচারী ২৪ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে পরে স্থানীয় সাংসদের হস্তক্ষেপে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়। এরই অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে শ্রমিক নেতারা জানান।

খনির একটি সূত্রে জানা যায়, চলতি মাসের শেষের দিকে রাশিয়ার একটি কম্পানির মাধ্যমে পাথর উত্তোলন হবে ও উত্তোলনকারী শ্রমিকদের সঙ্গে পাথর উত্তোলনের উপর টাকা দেওয়া হবে এই মর্মে চুক্তি হবে। তবে এ বিষয়ে খনির মহাব্যবস্থাপক সৈয়দ আবুল ফজল মো. নাজমুল আহসান হায়দার নিশ্চিত কিছু বলেন নি।

কেএফ