খুবির ৩০ জন শিক্ষকের পদত্যাগ

0
61
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় প্রধান, প্রভোস্ট ও ছাত্র বিষয়ক পরিচালকসহ ৩৩ টি প্রশাসনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন ৩০ জন শিক্ষক। বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে রেজিস্ট্রারের দপ্তরে তারা এই পদত্যাগপত্র জমা দেন।

একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় চারুকলা ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীনকে অপমানের প্রতিবাদসহ ২/৩ টি কারণ উল্লেখ করে তারা এই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, ১৮ জানুয়ারি একাডেমিক কাউন্সিলের সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় চারুকলা ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন উপস্থিত হন। ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ ডিসিপ্লিনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তফা সরোয়ার সভায় ড. আফরোজার অংশগ্রহণের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং তার উপস্থিতিতে সভা চলতে পারে না বলে দাবি করেন।

সভায় তিনি বলেন, চারুকলা ইনস্টিটিউটে প্রায় দুই মাস আগে প্রফেসর আমিরুল মোমেনিন নামে একজন সিনিয়র প্রফেসর যোগদান করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী তাকে ইনস্টিটিউটের পরিচালক করার কথা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তা করেনি। সে কারণে সভায় ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক উপস্থিত থাকতে পারেন না বলে দাবি করেন তিনি।

তখন উপাচার্যসহ একাডেমিক কাউন্সিলের অন্যান্য সদস্যরা চুপ ছিলেন বলে জানা গেছে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ড. আফরোজা গত বুধবার উপাচার্যের কাছে ভারপ্রাপ্ত পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগপত্র জমা দেন।

এদিকে ড. আফরোজাকে একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় অপমান করার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিকেলে ৩৩টি প্রশাসনিক পদ থেকে ৩০ জন শিক্ষক পদত্যাগ করেন।

পদত্যাগকারী ছাত্র বিষয়ক পরিচালক ড. অনির্বাণ মোস্তফা বলেন, চারুকলা ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত পরিচালককে অপমান করার প্রতিবাদ এবং চারুকলাকে পূর্ণাঙ্গ ডিসিপ্লিন করতে বাধাদানের প্রতিবাদসহ ৩/৪ টি কারণ উল্লেখ করে আমি পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছি। অন্যরাও একই কারণে পদত্যাগপত্র দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে প্রফেসর ড. মোস্তফা সরোয়ার বলেন, একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় যা বলেছি তা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম এবং প্রাকটিস অনুযায়ী বলেছি।

পদত্যাগকারী শিক্ষক প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীন বলেন, উপাচার্যের উপস্থিতিতে এ ধরনের আচরণ কোনভাবেই কাম্য হতে পারে না। সে কারণে আমি পদত্যাগ করেছি।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. মোল্লা আমীর হোসেন বলেন, তার দপ্তরে কয়েকজন শিক্ষক পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তখন আমি দপ্তরে ছিলাম না। রোববার ফাইল দেখে বলতে পারবো কতজন এবং কি কারণে পদত্যাগ করেছেন।

এ ব্যাপারে উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ ফায়েক উজ্জামান বলেন, কয়েকজন শিক্ষক পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন শুনেছি। সমস্যা সমাধানের জন্য চেষ্টা চলছে।