একই সঙ্গে সরকার ও বিরোধীদলে অবস্থান সংবিধান পরিপন্থী: সুরঞ্জিত

0
63
Suronjit

Suronjitসুপ্রিম কোর্টের প্রিন্সিপাল জাজমেন্টের রায় অনুযায়ী একই সঙ্গে সরকার ও বিরোধী দলে অবস্থান গণতন্ত্র, সংবিধান ও সংসদীয় রাজনীতির শিষ্টাচার পরিপন্থী। দশম জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির (জাপা) মন্ত্রীসভার সদস্য হয়ে সরকার গঠনে অংশ নেওয়া এবং একই সাথে বিরোধী দল হিসেবে সংসদে ভূমিকা রাখা প্রসঙ্গে এ কথা বলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে নৌকা সমর্থক জোট আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় সুরঞ্জিত বলেন, মাথা সরকারি দলে আর বিরোধী দলে লেজ এটা থাকা চলবে না। ‘দেলোয়ার হোসেন ভার্সেস স্টেট’ এই মামলার রায় অনুযায়ী এটা সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক।

অভিজ্ঞ এই পার্লামেন্টারিয়ান বলেন, গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক প্রক্রিয়ায় শক্তিশালী বিরোধী দল অপরিহার্য। বিশ্বের কোনো সংসদীয় গণতন্ত্রে বিরোধী দলবিহীন সংসদ নেই। বিরোধী দলবিহীন সংসদ গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক গ্রহণযোগ্যতা হারায়।

কিন্তু বিরোধী দলের অবস্থান দুই ধরণের হতে পারে- সম্পূর্ণ বিরোধী দল ও সহযোগিতামূলক বিরোধী দল। নির্ভেজাল সরকারি দল ও নির্ভেজাল বিরোধী দলের মাঝামাঝি কোনো অবস্থান সংবিধানে নেই।

গণতান্ত্রিক উত্তরণের ক্রান্তিলগ্নে সবাইকে সহযোগিতার আচরণ করতে হবে। সবাই যদি মন্ত্রীত্বের কাঙ্গাল হয় তাহলে গণতন্ত্রের কাঙ্গাল হবে কে? আমি আশা করব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিচক্ষণতার সাথেই যেকোনো সিদ্ধান্ত নেবেন।

আলোচনা ও সমঝোতা প্রসঙ্গে খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন হবে। তাকে কি আপনি বসাইছেন? কেন তাকে আপনি মানবেন না? এটা সম্পূর্ণ অন্যায় ও অগণতান্ত্রিক দাবি।

প্রাতিষ্ঠানিক বিরোধী দলীয় নেতা না হলেও তিনি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন ব্যক্তি। তাই তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নৈতিক দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে।

সুরঞ্জিত বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতি এখন দুটি ধারায় বিভক্ত। স্বাধীনতার পক্ষের ধারা যারা গঠনমূলক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে আর স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি যারা বিকৃত মানসিকতার রাজনীতি চর্চা করে। এই বিকৃত রাজনীতিরই বহি:প্রকাশ হল নির্বাচন পরবর্তী ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতন।

এ সময় আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ হিন্দ-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি চিত্তরঞ্জন দাস।

এসএসআর