বানারীপাড়ায় সাব-রেজিস্ট্রার অবরুদ্ধ

0
119
banaripara
গুগল মানচিত্রে বরিশালের বানারীপাড়া
banaripara
গুগল মানচিত্রে বরিশালের বানারীপাড়া

বরিশালের বানারীপাড়ায় ভুয়া পাওয়ার অব অ্যার্টনির মাধ্যমে দলিল রেজিস্ট্রি করার অভিযোগে সাব-রেজিস্ট্রার কাওসার খানকে অবরুদ্ধ করেছে বিক্ষুব্ধরা।

মঙ্গলবার বিকেল থেকে চাখার সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

ওই দিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওসি জিয়াউল আহসান ঘটনাস্থলে গিয়ে কাওসারকে উদ্ধার করেন। বুধবার ইউএনওর কার্যালয়ে দু’পক্ষকে নিয়ে বিষয়টির ফয়সালা করা হবে- এমন সমঝোতার ভিত্তিতে তিনি পরে সাব-রেজিস্ট্রারকে বরিশালে পাঠিয়ে দেন।

বিক্ষুব্ধদের অভিযোগ, চট্টগ্রামের নাসিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির বাসিন্দা তাবরেছ আনিছ আহমেদের মাতৃ ওয়ারিশ সূত্রে প্রাপ্ত চাখারের ৫১০ ও ৫১৫ নং খতিয়ানের ৩৭ শতক সম্পত্তি চাখারের আ. হাই জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে (অন্য ব্যক্তিকে তাবরেছ আনিছ আহমেদ সাজিয়ে) পাওয়ার অব অ্যার্টনি দেখিয়ে ১ মাস পূর্বে জাল দলিল তৈরি করে। সম্প্রতি আ. হাই ওই জাল দলিলের মাধ্যমে চাখারের মো. সহিদ সরদারের স্ত্রী লাখি বেগমের কাছে সম্পত্তি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়।

পরে বিষয়টি জেনে তাবরেছ আনিছ আহমেদের মামা লুৎফুল করিম মাসুক মৌখিক ও লিখিতভাবে সাব-রেজিস্ট্রারকে জাল-জালিয়াতির বিষয়টি অবহিত করে ৩ দিনের সময় চেয়ে দলিল না করা জন্য অনুরোধ করেন। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ মজিবুল ইসলাম টুকু জেনে তিনিও সাব-রেজিস্ট্রারকে দলিল করার আগে অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলেন। কিন্তু সাব-রেজিস্ট্রার কারো কথায় কর্ণপাত না করে রহস্যজনক কারণে মঙ্গলবার লাখি বেগমের নামে ওই দলিল রেজিস্ট্রি করে দেন।

বিক্ষুব্ধরা জানান, এ ব্যপারে ওই দিন রাতেই সাব-রেজিস্ট্রার কাওসার খান, দলিলের গ্রহীতা লাখি বেগম,তার স্বামী সহিদ সরদার, দলিল লেখক নাসির উদ্দিন ও জালিয়াত চক্রের হোতা আ. হাইকে আসামি করে এজাহারের জন্য থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

এদিকে বুধবার বিকেলে ইউএনও’র কার্যালয়ে তাবরেছ আনিছ আহমেদ ও সাব-রেজিষ্টার কাওসার খানকে নিয়ে সমঝোতা বৈঠকে বিবাদী পক্ষের কেউ উপস্থিত না হওয়ায় বাদীদের আইনী পদক্ষেপ নেওয়ার ব্যপারে পরামর্শ দেওয়া হয়।

অবশ্য এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সাব-রেজিস্ট্রার কাওসার খান জানান, আইন মেনেই দলিল রেজিস্ট্রি করা হয়েছে।