সিআইএ’র নির্যাতনের প্রতিবেদন প্রকাশ

0
97
senate-report-on-cia
 senate-report-on-cia
প্রতিবেদন নিয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেট ইন্টেলিজেন্স কমিটির প্রধান ডিয়ানে ফেইনস্টেইন।

সন্দেহভাজন হিসেবে আটক ব্যক্তিদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার (সিআইএ) নির্যাতন সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশ করেছে দেশটির সিনেট ইনটেলিজেন্স কমিটি।

এক খবরে বিবিসি জানিয়েছে, মঙ্গলবার মোট ছয় হাজার পৃষ্ঠার প্রতিবেদনেটি সম্পাদনা করে মাত্র ৪৮০ পৃষ্ঠা প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে ৯/১১ এর হামলার পর প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের শাসনামলে ২০০২ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত একটি কর্মসূচী চালু করে সিআইএ, যেটিকে অভ্যন্তরীনভাবে ‘রেনডিশন, ডিটেনশন অ্যান্ড ইন্টারোগেশন’ বলে অভিহিত করা হতো।

এই কর্মসূচীর আওতায় সন্দেহভাজনদের ঘুমাতে না দেয়া, পানিতে চুবানো, নির্দয় প্রহার করা এবং নানা রকম অবমাননাকর কাজ করানো হতো, যে পদ্ধতিকে ‘এনহ্যান্সড ইন্টারোগেশন টেকনিকস’ বা সংক্ষেপে ইআইটি বলা হতো।

এভাবে নির্যাতন করে সিআইএ যেসব তথ্য পেয়েছে তা পরবর্তীতে কোনও কাজে আসেনি বলেও উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে।

সিনেটের কাছে প্রতিবেদনটি হস্তান্তরের সময় ইন্টেলিজেন্স কমিটির প্রধান ডিয়ানে ফেইনস্টেইন বলেন, ‘সিআইএর যেসব কর্মকাণ্ড এই প্রতিবেদনে উঠে এসেছে তা যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কলঙ্ক লেপন করেছে’।

প্রতিবেদন সম্পর্কে এক বিবৃতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, জিজ্ঞাসাবাদের ওই পদ্ধতিগুলো মার্কিন ভাবমূর্তিকে বড় ধরণের ক্ষতির মুখে ফেলেছে। এতে বৈশ্বিক নানা বিষয়ে বিশ্বসহযোগিতা পাওয়ার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রকে বাধার মুখে পড়তে হয়েছে।

অবশ্য সিআইএ’র পরিচালক জন ব্রেনান দাবি করেছেন, এসব পন্থা ব্যবহার করে তারা অনেক নিরীহ মানুষের প্রাণ বাঁচাতে সক্ষম হয়েছেন।

এই প্রতিবেদন প্রকাশের কারণে হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কায় বিশ্বজুড়ে যুক্তরাষ্ট্রের সব দূতাবাস ও মার্কিন স্থাপনায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়।