পোশাক রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি কমেছে

0
36
Oven_Knit_Towel rmg
তৈরি পোশাক, নিট, ওভেন,

রাজনৈতিক অস্থিরতার নেতিবাচক প্রভাব স্পষ্ট হতে শুরু করেছে দেশের তৈরি পোশাক খাতে। চলতি বছরের প্রথম দুই প্রান্তিকে (জুলাই-ডিসেম্বর) সময়ে এই খাতে রপ্তানি আয় কমেছে। আলোচ্য সময়ে নিট ও ওভেন-পোশাক শিল্পের দুটি উপ-খাতেই আয় হয়েছে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে।

গত ডিসেম্বরে রপ্তানি আয়ে ১৯ দশমিক ৫৫ শতাংশ ও ২০ দশমিক ৩৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি। আগের মাসে তথা নভেম্বরে এ দুই খাতে খাত দুটিতে প্রবৃদ্ধি ছিল যথাক্রমে ২০ দশমিক ৪৮ শতাংশ ও ২১ শতাংশ।

রপ্তানি প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ বলছে, রাজনৈতিক সহিংসতার প্রভাবে রপ্তানি আদেশ কমে গেছে। পণ্য জাহাজীকরণ করতে না পারায় আদেশ পাওয়া পণ্য কারখানায় আটকে আছে। নিরাপত্তার করণ দেখিয়ে বিদেশি ক্রেতারা ভারতে রপ্তানি আদেশ স্থানান্তর করছে। তাছাড়া পাকিস্তানের জিএসপি সুবিধা পাওয়াকে দায়ি করছেন তারা।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) সূত্রে জানা গেছে, জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত সমেয় নীট পোশাক রপ্তানি হয়েছে ৫৯৪ কোটি ৮৬ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার।এ সময় ওভেন পোশাক রপ্তানি হয়েছে ৫৯৮ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার।

যা গত অর্থবছরে একই সময়ে ছিল নীট পোশাকে ৪৯৭ কোটি ৫৮ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার ও ওভেন পোশাকে ৪৯৭ কোটি ১০ লাখ ৬০ হাজার ডলার।

রপ্তানি কমার কারণ হিসেবে বিজিএমইএ সহ-সভাপতি রিয়াজ বিন মাহমুদ অর্থসূচককে জানান, চলমান অস্থরিতার কারণে বিদেশি ক্রেতারা নিরাপত্তা সংকটে রপ্তানি আদেশ কমিয়ে দিয়েছে।

হরতাল-অবরোধে ক্ষতিও পণ্য জাহাজীকরণে বিলম্ব এই রপ্তানিতে বেশি প্রভাব ফেলেছে বলে মনে করেন তিনি। তাছাড়া পাকিস্তানের জিএসপি সুবিধা পাওয়া ও ভারতে টি-শার্টের ওর্ডার বেড়ে যাওয়াকে বড় কারণ হিসেবে দেখছেন।

তবে সহিংসতা না থামলে রপ্তানি কমার প্রভাব আরও বাড়বে বলেও মনে করেন তিনি।