পদ্মায় ১১ ঘণ্টা পর ফেরি চলাচল

0
191
ferry
শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি রুটে নৌযান চলাচল বন্ধ
ferry
ঘন কুয়াশায় পদ্মায় ফেরি পারাপার বিঘ্নিত-ফাইল ছবি

ঘন কুয়াশার কারণে বন্ধ থাকার ১১ ঘণ্টা পর আবারও পদ্মার গুরুত্বপূর্ণ দুই নৌপথে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। শীত মওসুম শুরুর পর প্রায় প্রতিদিনই গুরুত্বপূর্ণ এ দুই নৌপথে কুয়াশার কারণে পারাপার বিঘ্নিত হচ্ছে।

এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের কাওড়াকান্দি ঘাটে ফেরি চলাচল সোমবার রাত ১১ টা থেকে প্রায় পৌনে ১১ ঘন্টা বন্ধ থাকে। আর মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ও রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় পারাপার বন্ধ থাকে ৯ ঘণ্টা।

পারাপার বিঘ্নিত হওয়ায় একদিকে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে যাত্রীরা। অন্যদিকে ঘাটে যানজট সৃষ্টি হওয়ায় পণ্য পরিবহনও বিলম্বিত হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া (শিমুলিয়া) ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক শেখর চন্দ্র রায় জানান, তীব্র কুয়াশার কারণে দুর্ঘটনা এড়াতে সোমবার রাত ১১টার দিকে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এ সময় ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন, শাহ আলী, কলমী লতা, করবী, কাকলী, কেতকী, রায়পুরা, রানীগঞ্জ, রানীক্ষেত, টাপলু, থোবাল ও লেন্টিং কয়েকশ যানবাহনে প্রায় ২ হাজার যাত্রী নিয়ে মাঝ পদ্মায় আটকা পড়ে।

দীর্ঘ সময় ফেরি বন্ধ থাকায় দুই ঘাটেও নাইট কোচসহ প্রায় ৩’শ যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় থাকে।

কুয়াশা কেটে যাওয়ার পর মঙ্গলবার সকাল পৌনে ১০টায় শিমুলিয়া ঘাট থেকে ফেরি ফরিদপুর এবং কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ফেরি রামশ্রী পারাপারের জন্য ছেড়ে যায় বলেও জানান তিনি।

এদিকে কুয়াশার কারণে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া পথে পারাপার বন্ধ হয়ে যায় সোমবার রাত ১২টার দিকে।

বিআইডব্লিটিসির দৌলতদিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম জানান, নদীতে কিছু দৃশ্যমান না হওয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন তারা।

এ সময় ফেরি শাহ মুখদুম, এনায়েতপুরী ও কাবেরী যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে মাঝনদীতে নোঙর করে থাকে। শীতের মধ্যে ফেরিতে আটকে থেকে দুর্ভোগ পোহাতে হয় যাত্রীদের।
ফেরি বন্ধ থাকায় ২ ঘাটে ৮’শর বেশি যানবাহন সারা রাত আটকা পড়ে।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কুয়াশা হালকা হয়ে এলে নদীতে আটকে থাকা ফেরিগুলো ঘাটে ফিরে আসে এবং ১৪টি ফেরি যানবাহন নিয়ে পারাপার শুরু করে বলেও জানান তিনি।

এএসএ/