অর্থ আত্মসাৎ: ৫ বিমা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

0
86
দুদক

দুদকজালিয়াতির মাধ্যমে প্রায় ৩৮ লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকি ও আত্মসাতের অভিযোগে সাধারণ বিমা কর্পোরেশনের ৫ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার রাজধানীর মতিঝিল থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক ফজলুল হক বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আসামিরা হলেন- সাধারণ বিমা কর্পোরেশনের সাবেক  মহাব্যবস্থাপক (বাধ্যতামূলক অবসরে) বিধুভূষণ চক্রবর্তী, লোকাল অফিসের ম্যানেজার ইব্রাহিম, ম্যানেজার (সংস্থাপন) এ এফ এম শাহাজালাল, ডেপুটি ম্যানেজার ও অডিট বিভাগের ইনচার্জ আব্দুল কাদির শিকদার ও ম্যানেজার (অডিট বিভাগ সার্বিক) শাহীনুজ্জামান।

এজহারে বলা হয় আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) এর জন্য সারসহ বিভিন্ন প্রকার মালামাল আমদানির বিপরীতে বাংলাদেশ বিমা কর্পোরেশন থেকে কভার নোট গ্রহণ করে। আমদানি প্রতি শিপমেন্টের জন্য বাংলাদেশ বিমা কর্পোরেশনকে প্রিমিয়াম প্রদান করে। এতে তারা প্রতারণা, বিশ্বাসভঙ্গ ও ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে মোট ১৩টি বিলের বিপরীতে চেক না দিয়ে ৮টি ভুয়া মানি রাশিদ ও ভুয়া মেরিন সার্টিফিকেট প্রদান করেন।

পরে এসব চেক ৮টি ভুয়া ও অস্তিত্ববিহীন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নামে ৮টি অগ্নিবিমাসহ পলিসি ইস্যু করে নিজেরা ও অবৈধভাবে কয়েকটি বেসরকারী বিমা কোম্পানীকে লাভবান করেন। ফলে অনেক প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিগুলোকে ক্ষতিগ্রস্ত করার পাশাপাশি সরকারের ৩৭ লাখ ৯৩ হাজার ২৩৬ টাকার রাজস্ব ক্ষতিপূর্বক তা আত্মসাৎ করেন তারা।

অনুসন্ধানে প্রতারণা ও আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারায় মামলাটি দায়ের করে দুদক।

এইউ নয়ন/এসএম