‘বাংলাদেশের পোশাক শিল্প পরিশুদ্ধ হওয়ার সুযোগ পেয়েছে’

0
95
US amba. Dan Mozena
যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা (ফাইল ছবি)

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা বলেছেন, রানা প্লাজা ট্রাজেডির পর বাংলাদেশের পোশাক শিল্প পরিশুদ্ধ হওয়ার সুযোগ পেয়েছে। এই কারণে বিশ্ববাসী এদেশের পোশাক কারখানায় নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে মনোনিবেশ করেছে। আর এই পদক্ষেপের কারণে কারখানার নিরাপত্তা নিশ্চিত হচ্ছে। বিশেষ করে ঝুঁকিপূর্ণ কারখানাগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

US amba. Dan Mozena
যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজীনা (ফাইল ছবি)

সোমবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে ঢাকা অ্যাপারেল সামিটের দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে ‘শ্রমিকদের ভবিষ্যৎ: কর্মপরিবেশের নিরাপত্তা ও টেকসই উৎপাদন’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, নিরাপত্তার জন্য প্রতিটি কারখানা অবশ্যই পরিদর্শন করতে হবে। এর সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য অবশ্যই সরকারকে কাজ করতে হবে।

একই সঙ্গে দেশের ইপিজেডগুলোকে শ্রম অধিকারের আওতায় আনতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

বিজিএমইএ দ্বিতীয় সহ- সভাপতি (অর্থ) রিয়াজ বিন মাহমুদের সঞ্চালনায় সেমিনারে প্যানেল আলোচনায় আরও অংশ নেন অ্যাকর্ডের সেফটি ইনস্পেক্টর ব্র্যেড লোয়েন, জার্মান দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ফার্দিনান ভোন ওয়াইহি, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ঢাকা শাখার প্রোগ্রাম ম্যানেজার টুমো পোটিয়ানেন, জয়েন্ট ইটিআই’র প্রধান প্রোগ্রামার দিবেই কট্লার, বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান, ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা আলী আহমেদ খান, শ্রমিক নেতা জেড এম কামরুল আনাম ও গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যরেন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফারজানা চৌধুরী।

সেমিনারে অ্যাকর্ডের সেফটি ইনস্পেক্টর ব্র্যেড লোয়েন বলেন, টেকসই কারখানার জন্য শ্রমিকই হলো মূলশক্তি। তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য অ্যাকর্ড কাজ করে যাচ্ছে। এনটিপিএ’র আওতায় অ্যাকর্ড শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়।

বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান বলেন, আগে নিরাপত্তা বলতে কারখানা মালিকরা অগ্নি নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দিতেন। তবে রানা প্লাজার পর মালিকদের চোখ খুলে গেছে। যার কারণে শ্রমিকদের নিরাপদ কর্ম পরিবেশ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে।

তিনি কর্মপরিবেশের নিরাপত্তা ও টেকসই উৎপাদনের জন্য মধ্যম পর্যায়ের ব্যবস্থাপনায় আরও বেশি আলোকপাত করার কথা বলেন।

গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যরেন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফারজানা চৌধুরী বলেন, কর্মপরিবেশের নিরাপত্তা ও টেকসই উৎপাদনের জন্য শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে হবে। তাতে উৎপাদন প্রক্রিয়ায় গতি আসবে। এর জন্য শ্রমিকদের হেলথ ইন্স্যুরেন্স পলিসি থাকতে হবে।

শ্রমিক নেতা জেড এম কামরুল আনাম বলেন, মালিক-শ্রমিক একত্রে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানোর কাজ করতে হবে।

এসইউএম