চিংড়ি শিল্পের উন্নয়নে সমঝোতা স্মারক সই

0
89
BFFEA signing
চিংড়ি চাষী ও প্রক্রিBFFEA signingয়াজাত প্লান্টের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও নিবিঢ় করার লক্ষ্যে সম্প্রতি খুলনার ৫টি প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই হয়।

চিংড়ি চাষী ও প্রক্রিয়াজাত প্লান্টের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও নিবিঢ় করার লক্ষ্যে সম্প্রতি খুলনার ৫টি প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে ইউএসএআইডির আর্থিক সহায়তায় ওয়ার্ল্ড ফিশ বাস্তবায়িত অ্যাকুয়াকালচার ফর ইনকাম অ্যান্ড নিউট্রিশন প্রকল্প।

এই কার্যক্রমে কৃষকদের সাথে সরাসরি কাজ করবে স্থানীয় এনজিও প্রতিষ্ঠান যুব একাডেমি।

ওয়ার্ল্ডফিশ দক্ষিণ এশিয়ার কাট্রি ডিরেক্টর ড. ক্রেইগ এ. মেইজনার, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশন (বিএফএফইএ)র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও যুব একাডেমির চেয়ারম্যান মো. খলিলুল্লাহ ও সংশ্লিষ্ট প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের ম্যানেজিং ডিরেক্টররা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

সমঝোতা স্বাক্ষরকারি প্ল্যান্টগুলো হলো রুপসা ফিশ অ্যান্ড অ্যালাইড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, বাগেরহাট সি ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, সাওদার্ন ফুড লিমিটেড ও সাতক্ষীরা ফুড লিমিটেড।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাউথ বাংলা এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম আমজাদ হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএসএআইডির সিনিয়র এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড ফুড পলিসি অ্যাডভাইজার ড. শাহীদুর রহমান ভুঁইয়া ও এআইএন প্রকল্পের চিফ অব পার্টি হেন্ডরিক জ্যান কেউস।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএফএফইএ’র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও যুব একাডেমির চেয়ারম্যান মো. খলিলুল্লাহ। এ সময় এআইএন প্রকল্পের ডেপুটি চিফ অব পার্টি ড. মনজুরুল করিম উপিস্থিত ছিলেন।

এই সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে স্বাক্ষরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে মানসম্মত চিংড়ি সংগ্রহ করে ক্রেতাদের কাছে রপ্তানি করবে এবং চিংড়ি শিল্পের উন্নয়নে ভুমিকা পালন করবে।চিংড়ি শিল্পের উন্নয়নে ৫টি প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের সাথে ইউএসএআইডি-এআইএন প্রকল্পের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

চিংড়ি চাষি ও প্রত্রিয়াজাত প্লান্টের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও নিবিঢ় করার লক্ষ্যে খুলনার পাঁচটি প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে ইউএসএআইডির আর্থিক সহায়তায় ওয়াল্ডফিশ বাস্তবায়িত অ্যাকুয়াকালচার ফর ইনকাম অ্যান্ড নিউট্রিশন প্রকল্প। এই কার্যক্রমে কৃষকদের সাথে সরাসরি কাজ করবে স্থানীয় এনজিও প্রতিষ্ঠান যুব একাডেমি।

ওয়ার্ল্ডফিশ দক্ষিণ এশিয়ার কাট্রি ডিরেক্টর ড. ক্রেইগ এ. মেইজনার, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশন (বিএফএফইএ)র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও যুব একাডেমির চেয়ারম্যান মো. খলিলুল্লাহ ও সংশ্লিষ্ট প্রক্রিয়াজাত প্ল্যান্টের ম্যানেজিং ডিরেক্টররা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। সমঝোতা স্বাক্ষরকারি প্ল্যান্টগুলো হলো রুপসা ফিশ অ্যান্ড অ্যালাইড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, বাগেরহাট সি ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, সাওদার্ন ফুড লিমিটেড ও সাতক্ষীরা ফুড লিমিটেড।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাউথ বাংলা এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড কমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম আমজাদ হোসেন, বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএসএআইডির সিনিয়র এগ্রিকালচারাল অ্যান্ড ফুড পলিসি অ্যাডভাইজার ড. শাহীদুর রহমান ভুঁইয়া ও এআইএন প্রকল্পের চিফ অব পার্টি হেন্ডরিক জ্যান কেউস। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএফএফইএ’র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও যুব একাডেমির চেয়ারম্যান মো. খলিলুল্লাহ। এ সময় এআইএন প্রকল্পের ডেপুটি চিফ অব পার্টি ড. মনজুরুল করিম উপিস্থিত ছিলেন।

এই সমঝোতা স্মারকের মাধ্যমে স্বাক্ষরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে মানসম্মত চিংড়ি সংগ্রহ করে ক্রেতাদের কাছে রপ্তানী করবে এবং চিংড়ি শিল্পের উন্নয়নে ভুমিকা পালন করবে।