ভুটানের সঙ্গে ২ চুক্তি

0
96
Bhutan
ভুটানের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি এবং প্রটোকলে সই করেছেন ভুটানের অর্থমন্ত্রী নরবু ওয়াংচুক এবং বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বাণিজ্য ও দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষ্যে ২টি চুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ ও ভুটান। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ২ দেশের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক শেষে গতকাল শনিবার বিকেলে চুক্তি ২টি স্বাক্ষরিত হয়। এছাড়াও উভয় দেশের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি সম্পর্কিত একটি প্রটোকলও সই করা হয়।

Bhutan
ভুটানের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি এবং প্রটোকলে সই করেছেন ভুটানের অর্থমন্ত্রী নরবু ওয়াংচুক এবং বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বৈঠককালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সফররত ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।

স্বাক্ষরিত চুক্তি ২টি হচ্ছে- বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি এবং ঢাকার বারিধারা কূটনৈতিক এলাকায় ভুটানের দূতাবাস নির্মাণের জন্য ভুটান সরকারের জন্য জমি বরাদ্দ।

ঢাকায় ভুটান দূতাবাসের জন্য জমি বরাদ্দ সংক্রান্ত চুক্তিতে সই করেছেন ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিনজিন দরজি এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ.এইচ. মাহমুদ আলী।

অপর ১টি চুক্তি এবং প্রটোকলে সই করেছেন ভুটানের অর্থমন্ত্রী নরবু ওয়াংচুক এবং বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

চুক্তি স্বাক্ষরের সময় উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

চুক্তি স্বাক্ষরের পর বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ ও ভুটান অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি (পিটিএ) স্বাক্ষরে সম্মত হয়েছে।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম ভুটান সফর করেন। সেসময় ২ দেশের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছিল। এর আওতায় উভয় দেশ ৭৪টি পণ্যের প্রবেশাধিকারের ব্যাপারে সম্মত হয়েছিল। নতুন চুক্তি অনুসারে ওই সংখ্যা ৯০টিতে উন্নীত হলো।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, নতুন চুক্তির আওতায় বাংলাদেশ পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য ব্যবহার্য বোল্ডার সহ যত বেশি সম্ভব ভুটানের রপ্তানি পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবশের অনুমতি দেবে।

তিনি বলেন, ২ দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে প্রয়োজনীয় সবকিছুই করতে সম্মত হয়েছেন উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রী।

এমই/