কিবরিয়া হত্যা মামলার অভিযোগপত্র সংশোধনের নির্দেশ

0
182
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া। ফাইল ছবি

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা Kibriaমামলায় সম্পূরক অভিযোগপত্রে হবিগঞ্জ পৌর মেয়র জিকে গউস ও সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর নাম-ঠিকানা ভুল থাকায় তা সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

বুধবার হবিগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম রোকেয়া আক্তার অভিযোগপত্র সংশোধনের জন্য মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা সিআইডির জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মেহেরুন্নেছা পারুলকে  নির্দেশ দেন।

একই সাথে আগামী ২১ ডিসেম্বর সংশোধিত সম্পূরক অভিযোগপত্রের শুনানীর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ নভেম্বর সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলায় তৃতীয় দফায় বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী ও আরিফুল হক চৌধুরীসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

অভিযোগপত্রে হবিগঞ্জের সাবেক মেয়র গোলাম কিবরিয়া গউস, মওলানা তাজউদ্দিনের ভগ্নিপতি হাফেজ মো. ইয়াহিয়াসহ আবু বকর ওরফে করিম, দেলোয়ার হোসেন রিপন, শেখ ফরিদ, আবদুল জলিল ও মওলানা ‌শেখ আবদুস সালামকেও আসামি করা হয়েছে।

তাদের বিরুদ্ধে বোমা হামলা ও হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে।

এর আগে ২০০৫ সালের ১৯ মার্চ প্রথম দফায় ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। দ্বিতীয় দফায় আসামির সংখ্যা ১৬ জন বাড়িয়ে ২০১১ সালের ২০ জুন ২৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। এদের মধ্যে দুজন ভারতে মারা যান। এবার তৃতীয় দফায় আসামির সংখ্যা আরও নয়জন বাড়ানো হলো। সে হিসাবে এ মামলায় মোট ৩৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, শাহ এ এম এস কিবরিয়া ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে এক জনসভা শেষে বের হওয়ার পথে গ্রেনেড হামলার শিকার হন। হামলায় গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

গ্রেনেড হামলায় কিবরিয়ার ভাতিজা শাহ মনজুরুল হুদা, আওয়ামী লীগের নেতা আবদুর রহিম, আবুল হোসেন ও সিদ্দিক আলী নিহত হন।

এ ঘটনায় হবিগঞ্জ-১ আসনের বতর্মান সাংসদ আবদুল মজিদ খান বাদী হয়ে হত্যা ও বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুটি মামলা করেন।

এসএম