সেক্স নিয়ে টিভিতে খোলামেলা আলোচনা পাকিস্তানে!

0
127
pakistan_htv
এইচটিভির অনুষ্ঠান 'ক্লিনিক অনলাইন'-এর উপস্থাপক ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। ছবি- বিবিসি বাংলা (সংগৃহীত)
pakistan_htv
এইচটিভির অনুষ্ঠান ‘ক্লিনিক অনলাইন’-এর উপস্থাপক ও বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। ছবি- বিবিসি বাংলা (সংগৃহীত)

উপমহাদেশের অন্যান্য দেশের মতোই পাকিস্তানেও সেক্স এবং যৌন বিষয়ে খোলামেলা আলোচনা শুরু হয়েছে। পাকিস্তানের একটি টেলিভিশন চ্যানেল যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ে অনুষ্ঠান শুরু করায় তা সেখানে হৈ-চৈ ফেলে দিয়েছে।

জানা গেছে, পাকিস্তানের হেলথ টিভির অনুষ্ঠান ‘ক্লিনিক অনলাইন’-এর লাইভ অনুষ্ঠানে উপস্থাপকের সঙ্গে থাকেন ডাক্তার। এই অনুষ্ঠানে দশর্করা ফোন করে যৌন স্বাস্থ্য বিষয়ে নানা ধরণের তথ্য-পরামর্শ চান।

পাকিস্তানের নানা প্রান্ত থেকে নারী ও পুরুষ কলাররা এই অনুষ্ঠানে জানতে চাইছিলেন হস্তমৈথুন কোনো রোগ কিনা।

আরেকজন জানতে চাইছিলেন, গর্ভসঞ্চারের জন্য স্বামী এবং স্ত্রী উভয়ের যৌনতৃপ্তি একসঙ্গে হতে হবে কি না।

একজন মহিলা জানতে চাইছিলেন, নিজেকে আত্মতৃপ্তি থেকে বিরত রাখতে তিনি কী করতে পারেন।

চিকিৎসকের জবাব, আপনি দিনে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ুন, যৌন উত্তেজক ছবি দেখা থেকে বিরত থাকুন।

পাকিস্তানের মতো একটা রক্ষণশীল সমাজে এসব প্রশ্ন নিয়ে টেলিভিশনে যে ধরণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে, সেটা নিয়ে বিতর্ক চলছে।

অনুষ্ঠানে ডাক্তার যেভাবে হস্তমৈথুনকে স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলে বর্ণনা করে ইসলামের আলোকে এর সমাধান দিলেন, সেটা আসলে কতটা বিজ্ঞানসম্মত?

ডাক্তার জানালেন, হস্তমৈথুন কোনো রোগ নয়, কিন্তু ধর্মে এটা করতে নিষেধ করা হয়েছে। সেজন্যেই তিনি এই পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি আরও বললেন, পুরুষদের বেলায় হস্তমৈথুনে কোনো সমস্যা নেই, কিন্তু মেয়েদের বেলায় এতে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি রয়েছে। সেজন্যেই তিনি এটার বিপক্ষে বলেছেন।

পাকিস্তানে যৌন স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোলামেলা আলোচনা একেবারেই হয় না। তাই এ নিয়ে সঠিক তথ্য ও পরামর্শ পাওয়া খুবই কঠিন। এমনকি চিকিৎসকদের মধ্যেও এ নিয়ে নানারকম ভুল ধারণা রয়েছে।

htv_pakistan_tv_channel_
হেল্‌থ টিভির অনুষ্ঠান ‘ক্লিনিক অনলাইন’। ছবি-বিবিসি বাংলা (সংগৃহীত)

করাচির একটি হাসপাতালের ডাক্তার জাভেদ ওসমান বলেন, চিকিৎসকদের এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ পর্যন্ত নেই। অনেক সময় তারা ধারণার ওপর নির্ভর করে পরামর্শ দিচ্ছেন। এজন্যেই আসলে প্রশিক্ষণটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কিছু স্বাস্থ্যকর্মী এখন পাকিস্তানে যৌন স্বাস্থ্য সম্পর্কে মানুষের সচেতনতা বাড়ানোর জন্য চেষ্টা করছেন। ডাক্তার সেকান্দার সোহানি এদের একজন।

তিনি বলছেন, তথ্যের অভাবেই মানুষের মধ্যে নানা রকম ভুল ধারণা তৈরি হচ্ছে। দাম্পত্য সম্পর্কের ক্ষেত্রে অনেক বিষয় আছে যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেক আচরণ স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এসব বিষয় মানুষকে জানাতে হবে।

পাকিস্তানের রক্ষণশীল সমাজে ধর্মের যে দাপট, সেখানে যৌনস্বাস্থ্য বিষয়ে কথা বলার বিপদ সম্পর্কে সচেতন ডক্টর সোহানি। এক্ষেত্রে তারা খুবই কৌশলি।

কিন্তু এটা নিয়ে যে পাকিস্তানে অন্তত কথা বলা শুরু হয়েছে, সেটাকেই একটা বিরাট ব্যাপার বলে মনে করছেন অনেকে।

সূত্র: বিবিসি

এএসএ/