অন্যদের পাপের সন্তান বলে বিপাকে বিজেপি মন্ত্রী

0
80
sadhvi_niranjan_jyoti
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ প্রতিমন্ত্রী সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি (ফাইল ছবি)
sadhvi_niranjan_jyoti
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ প্রতিমন্ত্রী সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি (ফাইল ছবি)

ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ছাড়া অন্য দলগুলোকে ‘হারামজাদে’ বা পাপের সন্তানের সঙ্গে তুলনা করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ প্রতিমন্ত্রী সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি।

মঙ্গলবার এক খবরে বিবিসি জানিয়েছে, এ মন্তব্যের কারণে বিরোধী দলগুলো লোকসভায় তার পদত্যাগ দাবি করেছে।

সোমবার রাতে দিল্লিতে এক জনসভায় তিনি বলেন, ”আপনারা দিল্লিতে রামজাদের (অর্থাৎ রামের সন্তানদের) সরকার চান, না কি হারামজাদের (অর্থাৎ পাপের সন্তানদের) সরকার চান সেটা আপনাদেরই স্থির করতে হবে।”

টিভি চ্যানেল এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ্যে মন্ত্রীর এই আপত্তিকর মন্তব্য ছড়িয়ে পড়তেই নিন্দার ঝড় ওঠে।

এরপরেও কিন্তু তিনি নিজের ভুল স্বীকার করতে রাজি হননি।

বরং সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ”ভারতে রামজাদে বলতে সব ভারতবাসীকেই বোঝায়। কারণ এ দেশে হিন্দুরা তো বটেই- খ্রিষ্টান, মুসলিমরাও রামেরই সন্তান। যারা তা মানে না বুঝতে হবে তাদের ভারতের ওপরই কোনও বিশ্বাস নেই।”

কিন্তু জ্যোতির এই ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হতে পারেনি তার নিজ দল বিজেপি পর্যন্ত।

মঙ্গলবার সকালে বিজেপির এমপিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাকে কঠোর ভাষায় ভর্ৎসনা করেছেন বলেও জানা গেছে।

এরপর সংসদের অধিবেশনের শুরুতেই বিরোধীরা সমস্বরে তার বক্তব্যের প্রতিবাদ জানাতে শুরু করেন।

সেই প্রতিবাদের মধ্যেই সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি জানান, তিনি কাউকে আঘাত করতে চাননি।

পরে ওই মন্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে তিনি নিজের বক্তব্য প্রত্যাহার করে নেন।

তবে দুঃখ প্রকাশে পরেও কংগ্রেসসহ অন্যান্য দলগুলো তাকে বরখাস্ত করার দাবিতে অনড় আছে।

সিপিএম নেতা সীতারাম ইয়েচুরি রাজ্যসভায় দাবি তুলেছেন, তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করতে হবে। কারণ তিনি যা বলেছেন সেটা একটা ফৌজদারি অপরাধ।

প্রসঙ্গত, ৪৭ বছর বয়সী সাধ্বী নিরঞ্জন জ্যোতি উত্তর প্রদেশের ফতেহ্‌পুর থেকে এই প্রথমবার লোকসভায় এমপি হয়ে এসেছেন। উত্তর ভারতের শহর-গ্রাম-মফস্বল এবং টিভি চ্যানেলে ধর্মীয় কথকতা করেই বিপুল পরিচিতি এবং জনপ্রিয়তা পেয়েছিলেন তিনি।

আর এখন সেই কথার ফাঁদেই বিপাকে পড়লেন এ সন্ন্যাসিনী।