৭ খুনে গ্রেপ্তার আরও ৩ র‌্যাব রিমান্ডে

0
83
naraongong
নারায়ণগঞ্জ সাত খুন: ফাইল ছবি

নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের মামলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আরও ৩ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

গ্রেপ্তার হওয়া র‌্যাব সদস্যরা হলেন- এএসআইআবুল কালাম আজাদ ও বজলুর রহমান এবং হাবিলদাল মো. নাসির উদ্দিন।

naraongong
নারায়ণগঞ্জ সাত খুন: ফাইল ছবি

মঙ্গলবার সকালে তাদেরকে নারায়ণগঞ্জের জেষ্ঠ্য হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। পুলিশের পক্ষ থেকে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে রিচারক মনোয়ারা বেগম তাদের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

গতকাল সোমবার রাতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন তদন্ত কর্মকর্তা ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মামুনুর রশিদ মণ্ডল। এই মামলায় এ পর্যন্ত মোট ১৭ জন র‌্যাব সদস্য ও কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

গতকাল সোমবার আদালতে এই মামলার তারিখ ধার্য ছিল। এ উপলক্ষে কারা হেফাজতে থাকা ২৪ আসামিকে গতকাল আদালতে হাজির করা হয়।

হত্যার ৭ মাস অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু এখনও মামলার চার্জশিট দেওয়া হয়নি। তাই দ্রুত চার্জশিট দাখিলের নির্দেশ দিতে আদালতে আবেদন করেছেন বাদিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান।

এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এইচ.এম. শফিকুল ইসলাম আগামী ২২ জানুয়ারি চার্জশিট জমা দেওয়ার আদেশ দেন।

এসময় আদালতে হাজিরার সময় এই মামলায় গ্রেপ্তার সাবেক ৩ র‌্যাব কর্মকর্তার হাতে হাতকড়া না থাকায় আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন বাদিপক্ষের আইনজীবী। পরবর্তী তারিখে এ ব্যাপারে নির্দেশ দেবেন বলে জানান আদালত। হাজিরা শেষে ২৪ আসামিকে আবারও কারাগারে পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার ও তার গাড়িচালক ইব্রাহিমকে অপহরণ করা হয়। এরপর গত ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৬ জনের ও ১ মে ১ জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় নিহত নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি ও নিহত আইনজীবী চন্দন সরকারের জামাতা ডা. বিজয় কুমার পাল বাদি হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় পৃথক ২টি মামলা করেন।

এ পর্যন্ত র‌্যাবের সাবেক ৩ কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, মেজর আরিফ হোসেন ও লেফটেন্যান্ট কমান্ডার এম.এম. রানাসহ মোট ২৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এরমধ্যে ১৪ জন র‌্যাব সদস্য হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। অপর ১১ জন র‌্যাব সদস্যসহ মোট ১৬ জন সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

এমই/