সমুদ্রপথে মানব পাচার রোধে সুপারিশ বায়রার

0
107
BAIRA3
সোমবার রাজধানীর ইস্কাটনের বায়রা ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। ছবি-খালেদুল কবির নয়ন

সাগরপথে মানবপাচার ঠেকাতে ভারত, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়াসহ উপকূলীয় দেশগুলোর সঙ্গে নিরাপত্তা চুক্তি ও যৌথ তল্লাশি ব্যবস্থার সুপারিশ করেছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সিজ (বায়রা)।

সাগরপথে মানবপাচার ঠেকাতে সোমবার রাজধানীর ইস্কাটনে বায়রা কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এটিসহ ৯ দফা সুপারিশ তুলে ধরে বেসরকারি জনশক্তি রপ্তানিকারকদের সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তথ্য তুলে ধরে বায়রা সভাপতি আবুল বাশার বলেন, গত ১০ বছরে বঙ্গোপসাগর দিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের ২ লাখেরও বেশি মানুষ পাচার করা হয়েছে। এ সময় নিহত হয়েছে ১২শ’র বেশি মানুষ। এছাড়া ৩ হাজার মানুষ পঙ্গু ও ১০ হাজার মানুষ নিখোঁজ হয়েছে। আর আটক হয়েছে চারশ’র বেশি মানুষ।

তিনি বলেন, সমুদ্রপথে অবৈধভাবে যারা গিয়েছেন; তারা কেউ স্বপ্ন পূরণ করতে পারেননি। বরং কিছুদিন পরে আবার দেশে ফিরে এসেছেন।

বায়রার সুপারিশের মধ্যে আরও আছে মানব পাচারের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারে সেন্টমার্টিন, টেকনাফ, শাহপরীর দ্বীপ ও কক্সবাজারের পাশাপাশি চিহ্নিত এলাকাগুলোতে বিজিবি, র্যা ব ও পুলিশসহ বিভিন্ন বাহিনীর সমন্বয়ে যৌথ অভিযান পরিচালনা করা।

গ্রেপ্তার হওয়া পাচারকারী ও তাদের সঙ্গীদের জামিন না দেওয়া ও আটকের পর এসব অপরাধীর ছবি ফলাও করে গণমাধ্যমে প্রকাশ করা।

পাচারের জন্য চিহ্নিত উপকূলে আধুনিক নৌযানসহ কোস্ট গার্ড ও নৌবাহিনীর টহল বাড়ানো এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে প্রচার চালানো।

আইওএম, আইএলও, ইউএনএইচসিআরসহ অভিবাসী ও উদ্বাস্তু বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর পরামর্শ ও সহায়তা এবং বৈধপথে কর্মীদের বিদেশ যাওয়ার গতি বাড়াতে সরকার ও বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ।

এইউ নয়ন/এসএম