‘১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে পে-কমিশনের প্রতিবেদন’

0
101
আবুল মাল আব্দুল মুহিত (ফাইল ছবি)

আগামী মাসে পে-কমিশনের প্রতিবেদন পাওয়ার পর যত দ্রুত সম্ভব পে-স্কেল বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

আবুল মাল আব্দুল মুহিত (ফাইল ছবি)
আবুল মাল আবদুল মুহিত (ফাইল ছবি)

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিনের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় বেতন স্কেলের আওতাভুক্ত সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের জন্য গঠিত ‘বেতন ও চাকুরি কমিশন ২০১৩’ এর প্রতিবেদন আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে দাখিল হবে। কমিশনের প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর যত দ্রুত সম্ভব তা বাস্তবায়ন করা হবে’।

এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বর অর্থমন্ত্রী পে কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আগামী অর্থ বছরের (২০১৫-১৬) জুলাই মাস থেকে নতুন বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর হবে।

ছয় মাসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার সময় দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাস উদ্দিনকে চেয়ারম্যান করে গত বছরের নভেম্বরে পে অ্যান্ড সার্ভিসেস কমিশন গঠন করা হয়।পরে কমিশনের মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়ানো হয়।

এরই মধ্যে কমিশন জানিয়েছে, তারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সরকারের কাছে রিপোর্ট দিতে সক্ষম হবেন।

সরকারের কাছে বিদেশে অর্থ পাচারের তথ্য নেই

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে কী পরিমাণ অর্থ পাচার হয়েছে, তার তথ্য সরকারের কাছে নেই বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

জামালপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ফরিদুল হক খানের প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশ থেকে বিদেশে অর্থ পাচার রোধে বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) সার্বক্ষণিকভাবে কার্যকর রয়েছে।

‘তবে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে মোট কী পরিমাণ অর্থ পাচার করা হয়েছে, তার কোনো তথ্য এই ইউনিটের কাছে নেই’।

তবে অর্থ পাচারে তথ্য আনতে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সম্পাদনের চেষ্টা অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।
তিনি বলেন, ‘সমঝোতা স্মারক সম্পাদিত হলে অর্থ পাচার সম্পর্কিত তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হবে’।

তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান সোনালী ব্যাংকের বকেয়া ঋণ পরিশোধ করেননি

তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান সোনালী ব্যাংকের বকেয়া ঋণ পরিশোধ করেননি বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

সংসদে এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, সেপ্টেম্বর, ২০১৪ ভিত্তিক সিআইবি ডাটাবেইজের সংরক্ষিত ঋণ তথ্য অনুসারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দুই ছেলে তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান তাদের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ‘ড্যান্ডি ডায়িং লিমিটেড’ এর নামে রাষ্ট্র মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংক হতে ঋণ নিয়েছেন।

‘বকেয়া ঋণস্থিতির পরিমাণ ৪০ কোটি ১৪ লাখ ২ টাকা। তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান ওই ঋণ পরিশোধ করেননি’।

ইউএম/