খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস মঙ্গলবার

0
133
ku
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়-ফাইল ছবি
ku
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়-ফাইল ছবি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস ২৫ নভেম্বর মঙ্গলবার। এ উপলক্ষে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

খুবির জনসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক এস এম আতিয়ার রহমান জানান, বিশ্বাবদ্যালয় দিবসের কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে সকাল ১০টায় বর্ণাঢ্য র‍্যালি, বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল, বিকাল ৩ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত মুক্ত মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এছাড়া সন্ধ্যা ৬ টায় শহীদ মিনার চত্ত্বর, অদম্য বাংলা ও কটকা স্মৃতিসৌধে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন। ক্যাম্পাস, নতুন প্রশাসনিক ভবন, ক্যাফেটেরিয়া, একাডেমিক ভবন ও হলসমূহে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে বর্তমান ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমিত সম্ভাবনা রয়েছে। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এ বিশ্ববিদ্যালয়কে সামনে এগিয়ে নিতে হবে।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় দিবস প্রকৃত অর্থে বিগত সময়ের কার্যক্রম মূল্যায়ণের দিন। দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই নিরন্তর গবেষণার মাধ্যমে উন্নয়নের নতুন দিক-নির্দেশনা দিতে হবে।

নিরবিচ্ছিন্নভাবে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে শিক্ষাকার্যক্রমের ২ যুগ পূর্তি নিঃসন্দেহে দেশে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিশেষ অর্জন, ঐতিহাসিক ঘটনা। আগামী বছর ২৫ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের রজতজয়ন্তী উদযাপনের মাধ্যমে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উৎকর্ষের এক বিশেষ স্মারক রচিত হবে বলেও জানান তিনি।

দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের পর ১৯৯০-৯১ শিক্ষাবর্ষে ৪ টি ডিসিপ্লিনে ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। ১৯৯১ সালের ৩০ আগস্ট প্রথম ওরিয়েন্টেশন এবং ৩১ আগস্ট ক্লাশ শুরুর মাধ্যমে শিক্ষা কার্যক্রমের সূচনা হয়। পরে একই বছরের ২৫ নভেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন।

২০০২ সালের ২৫ নভেম্বর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে পালিত হয় প্রথম খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। এরই ধারাবাহিকতায় সেই থেকে প্রতিবছর ২৫ নভেম্বর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

মহানগরী খুলনা থেকে ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়ক সংলগ্ন ময়ূর নদীর পাশে এক মনোরম পরিবেশে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত। প্রতিষ্ঠাকালের দিক থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৯ম।

সময়ের চাহিদা অনুযায়ী এবং ভবিষ্যতের চাহিদার নিরিখে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা বিষয়ের প্রতি অধিকতর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫টি স্কুলের(অনুষদ) অধীনে ২১টি ডিসিপ্লিন (বিভাগ) এবং একটি ইনস্টিটিউটে (চারুকলা) অধীনে ৩টি ডিসিপ্লিন শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়মিত ব্যাচেলর ডিগ্রি, ব্যাচেলর অব অনার্স ডিগ্রি, মাস্টার্স ডিগ্রি, এম ফিল, এবং পিএইচ ডি. প্রদান করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষক সংখ্যা ৩৭২ জন। ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে ৫ হাজারের বেশি, এর মধ্যে বিদেশি ছাত্র-ছাত্রী ১২ জন। এছাড়া কর্মকর্তা ২২০ জন এবং কর্মচারী রয়েছে ৩ শতাধিক।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে রয়েছে ৩টি একাডেমিক ভবন, প্রশাসনিক ভবন, ভাইস-চ্যান্সেলরের বাসভবন, ৩টি আবাসিক হল, মেডিকেল সেন্টার, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ৫টি বাসভবন, অগ্রণী ব্যাংক শাখা, ডাকঘর ও মসজিদ।

এছাড়া ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকদের জ্ঞান সহায়তায় রয়েছে সমৃদ্ধ কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ভবন ও শার্লী ইসলাম গ্রন্থাগার ভবন।

এএসএ/