প্রভিশনে ছাড়ের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করবে বিএমবিএ

0
161
বিএমবিএ
বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন
বিএমবিএ
বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকারস অ্যাসোসিয়েশন

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে আনরিয়ালাইজড লোকসানের বিপরীতে সঞ্চিতি রাখার বাধ্যবাধকতায় ছাড়ের মেয়াদ বাড়ানোর অনুরোধ জানাবে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ)। চলতি বছরের ডিসেম্বরে এই ছাড়ের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা। বিএমবিএ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, এ বিষয়ে আবেদন জানানোর আগে পুরো বিষয়টি পর্যালোচনা করে একটি যৌক্তিক প্রস্তাব তৈরি করতে একটি কমিটি গঠন করেছে বিএমবিএ। কমিটির সদ্যরা হলেন, বিএমবিএ’র সহ-সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান, নির্বাহী সদস্য খালিদ ইউসুফ ফারাজি, মোশাররফ হোসাইন, সদস্য তৌহিদ আশরাফ ও হাসান জাভেদ চৌধুরী।

প্রসঙ্গত, ব্রোকারেজ হাউস, স্টক ডিলার ও মার্চেন্ট ব্যাংকগুলোর নিজস্ব ও গ্রাহকের পত্রকোষে অনাদায়ি যে ক্ষতি রয়েছে, তার বিপরীতে বাধ্যতামূলকভাবে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) রাখতে হয়।পুঁজিবাজারে ধসের প্রেক্ষিতে এ সঞ্চিতি রাখার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছিল। শুধু নিজস্ব বিনিয়োগ নয়, গ্রাহকদেরকে দেওয়া অনাদায়ী মার্জিন ঋণের ক্ষেত্রেও সঞ্চিতি রাখতে হয়। এ ক্ষেত্রেও ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ছাড় দেওয়া হয়েছিল।

এ বিষয়ে মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সাবেক সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন বলেন, বর্তমান পুঁজিবাজার আগের তুলনায় কিছুটা ভালো। এমন অবস্থায় সঞ্চিতি সংরক্ষণে ছাড়ের মেয়াদ সময় বাড়ানো না হলে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। আর ভালো বাজারে সব মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকার হাউস মুনাফা করছে তাও ঠিক নয়। আর যে মুনাফা হচ্ছে তাও সংরক্ষণের জন্য যথেষ্ট নয়। এজন্য বাজারের স্বার্থেই এ বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবে বিবেচনা করা উচিত।

তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে বিএমবিএ মিটিং করেছে। শিগগিরই এ সময়সীমা আরও এক বছর বাড়ানোর জন্য বিএসইসির কাছে আবেদন জানানো হবে।

এমটিবি ক্যাপিটাল লিমিটেডের সিইও খায়রুল বাশার আবু তাহের মোহাম্মদ বলেন, সময় বাড়ানো না হলে আমাদের সক্ষমতা কমে আসবে। বর্তমানে আমাদের যে মুনাফা আছে তা দিয়ে শুধু ব্যয় উঠে আসবে। এরপর যদি আবার প্রভিশনিংয়ের টাকা রাখতে হয় তাহলে গ্রাহকদের মার্জিন লোন দেওয়ার মতো টাকা আমাদের হাতে থাকবে না। আর বর্তমানে বাজার এমন অবস্থায়ও নেই যে সবাই খুব বেশি মুনাফা করছে। এক্ষেত্রে সময় বাড়ানো হবে বাজারের জন্য ইতিবাচক। এটি করা হলে মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকার হাউসগুলোর সক্ষমতাও বাড়বে বলে মত তার।

অর্থসূচক/জিইউ