‘স্প্রেড নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক’

0
86
Lotus-Kamal
পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল- ফাইল ছবি।
Lotus-Kamal
পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল- ফাইল ছবি।

ব্যাংকের আমানত ও ঋণের সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) নিয়ন্ত্রণে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কার্যত কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তার মতে, ব্যাংকের স্প্রেড সীমা ৩ শতাংশের নিচে হওয়া উচিত।

বুধবার বিকেলে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এন ই সি সম্মেলন কক্ষে সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণয়ন উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় তিনি এ কথা বলেন।
দেশের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী প্রতিনিধি ও ব্যাংকার্সদের সাথে এ আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়।

অ্যালুমিনিয়াম ম্যানুফেকচারিং অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ওবায়দুর রহমানের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব সুরাইয়া বেগম, সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য ড. শামসুল আলম, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য আরাস্তু খানসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, নতুন ব্যাংকের খেলাপি ঋণ না থাকলেও তাদের স্প্রেড বেশি। এটা কমানোর জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কোনো উদ্যোগ নেই বলে ব্যাংকগুলো স্প্রেড কমাচ্ছে না। স্প্রেড কমিয়ে বিনিয়োগের পরিবেশ তৈরির জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতি আহ্বান জানান তিনি ।

তিনি বলেন, কিছু মানুষ আছে যারা ঋণ নিয়ে ফেরত দেয় না। এসব খেলাপি ঋণের বোঝা সামাল দিতে ব্যাংকগুলো স্প্রেড কমাচ্ছে না। সেই ঋণের বোঝা আমাদের সবাইকে বহন করতে হচ্ছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, আগামী পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার ফলে শিল্পের যে গতিধারা তৈরি হবে; তার জন্য যথেষ্ট বিনিয়োগ পরিবেশ আছে কিনা বা না থাকলে করণীয় কী- তা ঠিক করতে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিটি মানুষকে এ পরিকল্পনার মধ্যে অন্তর্ভূক্ত করতে হবে; তা না হলে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে যাবে । বর্তমানে দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি; ২০২১ সালের মধ্যে তা ১৮ কোটিতে পরিণত হবে। এসব কথা মাথায় রেখেই সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা করা হবে বলে তিনি জানান।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধিরা আগামী পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা সফল করতে করণীয় সম্পর্কে তাদের নিজেদের পক্ষ দাবি তুলে ধরেন।

ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস ও ফুটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান আবু তাহের বলেন, আমরা চামড়া শিল্পকে পোশাক শিল্পের বিকল্প হিসেবে তৈরি করতে চাই। বিশ্বে চামড়া শিল্পের বাজার আছে ২২০ বিলিয়ন ডলারের। সেই বাজার ধরতে সরকারের সহযোগিতা দরকার বলে তিনি জানান। তাছাড়া সাভারে চামড়া শিল্প সরিয়ে নিতে তিনি ব্যাংক থেকে স্বল্প সুদের ঋণের ব্যবস্থা করার জন্য আহ্বান জানান।

অ্যালুমিনিয়াম ম্যানুফেকচারিং অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ওবায়দুর রহমান বলেন, রপ্তানি বহুমুখীকরণের দিকে নজর দিতে হবে। অ্যালুমিনিয়াম দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে। পোশাক খাতের পরেই অ্যালুমিনিয়ামের অবস্থা। অতিমাত্রায় ব্যাংক ঋণের সুদ ব্যবসায়ীদের সাংঘাতিকভাবে বেদনা দিচ্ছে। এ জন্য তিনি ব্যাংকের সুদের হার কমানোর পাশাপাশি স্প্রেড কমানোর ব্যাপারেও কথা বলেন তিনি।

সফটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশনের (বেসিস) সাধারণ সম্পাদক মো. সোহেল বলেন, দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা নিতে হবে। আমরা এখন অনেক সফটওয়ার রপ্তানি করছি কিন্তু লোকাল কোম্পানিগুলোকে উৎসাহিত করতে পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বাংলাদেশ কার্গো জাহাজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আহমেদ বলেন, সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় দ্রুত গভীর সমুদ্রবন্দর, পোতাশ্রয় এবং ক্যাপিটাল ড্রেজিং-এ জোর দিতে হবে। জাহাজ নিমার্ণে কর কমানো এবং নৌ-পুলিশকে শক্তিশালী করতে আহবান জানান। এতে সদুদ্রে ডাকাতি বা হয়রানির পরিমাণ অনেক কমে আসবে বলে তিনি মনে করেন।

হ্যান্ডিক্রাফট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এস এম হায়দার দেশের কয়েকটি জায়গায় ক্রাফ্ট ভিলেজ করে দেওয়া আহ্বান জানান।

এসএম/এস রহমান/