চাকরি হারালো ইউনিলিভারের ২শ’ কর্মকর্তা-কর্মচারি

0
161

uniliver_jobless_khulnaখুলনায় নতুন বছরে চাকরি হারালো ইউনিলিভারের ২শ’ কর্মকর্তা-কর্মচারি। চাকরিচ্যুতদের মধ্যে রয়েছে ম্যানেজার, ফিল্ড সেলস্ এক্সিকিউটিভ, সিনিয়র সেলস্ অফিসার, সেলস্ অফিসার, জুনিয়ার সেলস্ অফিসারসহ গাড়ির চালক।

বিনা নোটিশে চাকরিচ্যুত করার প্রতিবাদে শুক্রবার দুপুরে এসব কর্মকর্তা-কর্মচারীরা খুলনা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করেন।এই সম্মেলনে তারা চাকরি ফিরে পাওয়ার দাবিতে  কর্মসূচি ঘোষণা করেন। তাদের এই কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৭ জানুয়ারি প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি প্রদান, ৮ জানুয়ারি পিকচার প্যালেস মোড়ে মানববন্ধন ও ৯ জানুয়ারি ইউনিলিভার খুলনা অফিসের সামনে অনশন।

সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন (এসএসও) ফিরোজ আহমেদ।লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আরএসএম নাজমুল করিমের মাধ্যমে জানতে পারি আমরা ইউনিলিভার পরিবারের সদস্য না। অথচ ২শ’ জনের অধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী ১৫, ২০ ও ২৫ বছর ধরে ইউনিলিভারের মাধ্যমে বিভিন্ন পরিবেশকের অধীনে চাকরি করে আসছি। বিগত সময় একাধিক পরিবেশক পরিবর্তন হলেও কোম্পানির নিয়ম অনুযায়ী কোনও কর্মচারী চাকরিচ্যুত হয়নি।

সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে বলা হয়, পরিবেশক মেসার্স হাসান ব্রাদার্স এর পরিবর্তে ইসলাম ব্রাদার্স দায়িত্বপ্রাপ্ত হয় এবং ইসলাম ব্রাদার্স এর মালিক সাইফুল ইসলাম ইউনিলিভারের আর.এস.এম নাজমুল করিম ও টি.এম তারেকুজ্জামান এবং রিজোনাল কোঅর্ডিনেটর মোস্তাক আহমেদ, কোঅর্ডিনেটর আরশাদ হোসেন ডাব্লু অর্থের বিনিময়ে নতুন লোক আমাদের অজান্তে নিয়োগ করে এবং অন্যায়ভাবে আমাদের চাকরিচ্যুত করে।বছরের প্রথমে চাকরি হারিয়ে পরিবার নিয়ে চরম হতাশায় দিন কাটছে তাদের।

এ অবস্থায় তারা শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাকরি ফিরে পাওয়ার দাবি জানান।একই সঙ্গে তারা আর.এস.এম নাজমুল করিম ও টি.এম তারেকুজ্জামান এবং রিজোনাল কোঅর্ডিনেটর মোস্তাক আহমেদ, কোঅর্ডিনেটর আরশাদ হোসেন ডাব্লুর অপসারণ দাবি করেন। সংবাদ সম্মেলনে চাকরিচ্যুত কর্মকর্তা কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

কেএফ