ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১৮ দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ : আহত-২০
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১৮ দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ : আহত-২০

brahmanbaria_map১৮ দলীয় জোটের ডাকা টানা ৭২ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচির প্রথমদিনে শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর পরিণত হয় রণক্ষেত্রে। শহরের টি.এ রোডে পুলিশ-বিজিবির সাথে ১৮ দলীয় নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় শতাধিক ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।এতে পুলিশসহ কমপক্ষে ২০জন আহত হয়েছে। সড়কে যান চলাচল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পুলিশ কান্দিপাড়া আবাসিক মহল্লায় প্রবেশ করে তাণ্ডব চালায়। এসময় জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদের কার্যালয় ও বাসভবনে ব্যাপক ভাঙচুর করে। সংঘর্ষকালে পুলিশের গুলিতে কমপক্ষে ১৫জন গুলিবিদ্ধসহ ২০জন আহত হয়।

স্থানীয় নারী-পুরুষ অভিযোগ করেছে, পুলিশী তাণ্ডবে গোটা এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। নারী-পুরুষ বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে পালায়। শহরের টি.এ রোডে পুলিশের এক কনস্টেবল অস্ত্র নিয়ে নড়াচড়া করার সময় নিজ গুলিতে আহত হন।

অবরোধ চলাকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে চট্টগ্রামগামী একটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনে ১০/১২টি ককটেল নিক্ষেপ করে পিকেটাররা। এই ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি। পুলিশ অবিস্ফোরিত অবস্থায় বেশ কয়েকটি ককটেল উদ্ধার করে।

শহরের কলেজ রোড, কাউতলী মোড়ে দফায় দফায় ককটেল বিষ্ফোরণ ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এদিকে ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশ ও বিজিবি টহল অব্যাহত রাখে।

এদিকে সকাল ১১টার দিকে কসবা উপজেলার তেতৈয়া এলাকার বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে গাছ ফেলে কসবা-আখাউড়া সড়ক অবরোধ করে। পুলিশ সড়কে ফেলে রাখা গাছ সরাতে গেলে অবরোধকারীরা তাদের উপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশের মাইক্রোবাসটি ভাঙচুর করা হয়। অবরোধের ফলে আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি রফতানি বন্ধ রয়েছে। দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ