‘মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের ডিজিটাইজ সনদ’

0
106
মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয়োল্লাস। ছবি: ফাইল ছবি
মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয়োল্লাস। ছবি: ফাইল ছবি
মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয়োল্লাস। ছবি: ফাইল ছবি

আগামী বছরের মার্চের মধ্যে সকল মুক্তিযোদ্ধাকে ডিজিটাইজ সনদপত্র প্রদান করা হবে।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক মঙ্গলবার সংসদে সরকারি দলের সেলিনা বেগমের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে আরও বলেন, যারা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটে নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে আবেদন করেছেন তাদের আবেদনগুলো বর্তমানে যাচাই-বাছাই পর্যায়ে রয়েছে। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এগুলোর যাচাই-বাছাই শেষ করে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা সম্ভব হবে।

স্বতন্ত্র সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য অনলাইনে ১ লাখ ২ হাজারের অধিক আবেদন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে জমা পড়েছে। আর নির্ধারিত ফরম এবং হাতে লেখা প্রায় ১৪ হাজার আবেদন জমা পড়েছে। এই মুহূর্তে আর নতুন করে আবেদনের সুযোগ নেই।

সরকারি দলের ওয়ারেসাত হোসেন বেলালের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ৪৫ হাজারের অধিক ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাকে কোন ধরনের বিধি-বিধান না মেনেই তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অথচ মুক্তিযোদ্ধা হওয়া কোন আমলের বিষয় নয়। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত যারা রণাঙ্গনে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন তারাই তালিকাভুক্ত হওয়ার কথা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, জোট সরকার এ বিষয়টি আমলে নেয়নি।

জাতীয় পার্টির নূরুল ইসলাম মিলনের অপর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এ পর্যন্ত ১ লাখ ৮৭ হাজার ৫৯৭টি সনদ মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। ভুয়া মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা থেকে বাদ দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সকল মুক্তিযোদ্ধার সনদ যাচাইয়ের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে এবং শিগগিরই মিডিয়ায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে উপজেলা পর্যায়ে সকল সনদধারী মুক্তিযোদ্ধাকে তাদের উপস্থিতিতে প্রকাশ্যে শুনানির মাধ্যমে যাচাই-বাছাই করা হবে।

সরকারি দলের মমতাজ বেগমের এক প্রশ্নের জবাবে আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, এনএসআই’র তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশ অনুযায়ী ১৮২ জন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার গেজেট ও সনদ বাতিল করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির পীর ফজলুর রহমানের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদধারী ৫ সচিবের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

সূত্র: বাসস