মেয়েদের শালীন পোশাক পরতে বলায় বিতর্কে পুলিশ

0
80
evetease
কলকাতার অনলাইন পত্রিকা এবেলা-র খবরে ও পরে অন্যান্য মিডিয়ায় নির্দেশিকাটি ছড়ালে পুলিশ তা উঠিয়ে নেয়
evetease
কলকাতার অনলাইন পত্রিকা এবেলা-র খবরে ও পরে অন্যান্য মিডিয়ায় নির্দেশিকাটি ছড়ালে পুলিশ তা উঠিয়ে নেয়

ইভ-টিজিং ঠেকাতে মহিলাদের শালীন পোশাক পরা বা ভিড় ট্রেন-বাসে না-ওঠার পরামর্শ দিয়েছিল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ।

কিন্তু বিতর্কের মুখে তড়িঘড়ি সেই পরামর্শ প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

বুধবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কলকাতা পুলিশ কমিশনারেট তাদের ওয়েবসাইটে ইভ-টিজিং ঠেকানোর জন্য যে একগুচ্ছ পথ দেখিয়েছিল, তার প্রথমেই ছিল ‘শালীন পোশাক’ পরুন।

কিন্তু এ নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ার পর তারা এদিন তাদের ওয়েবসাইট থেকে ওই পেজটাই পুরো তুলে নিয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য মহিলা কমিশন বলছে, পুলিশ এভাবে পিছু হঠায় তারা খুব খুশি।

কমিশনের চেয়ারপার্সন সুনন্দা মুখার্জি বলেছেন, ‘‘এটাকে আমরা আমাদের বিরাট জয় এবং বিরাট একটা অর্জন হিসেবেই দেখছি।’’

এদিকে পুলিশ কর্তৃপক্ষ এভাবে সাফাই দেওয়ার চেষ্টা করলেও ওই নির্দেশিকা নিয়ে শহরের মহিলারা অনেকেই প্রতিবাদ জানান।

বিধাননগরের বাসিন্দা শিপ্রা দাশ বলেছেন, ‘‘মেয়েদের উত্যক্ত করার ঘটনা পুলিশ ঠেকাতে পারবে না – আর দোষটা চাপানো হবে মেয়েদের পোশাক-আষাকের ওপর, এটা কেমন কথা?’’

শিপ্রা দাশ বিধাননগরের বাসিন্দা। ওই নির্দেশিকায় পুলিশ শুধু মেয়েদের শালীন পোশাক পরতেই বলেনি, তার সঙ্গে বেশি রাতে বাড়ি না-ফেরা কিংবা ভিড় বাস-ট্রেনে না-ওঠারও পরামর্শ দিয়েছিল।

মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন সুনন্দা মুখার্জি অবশ্য বলছেন – তারা এই নির্দেশিকার সঙ্গে কখনওই একমত ছিলেন না, বরং এই ধরনের ‘মধ্যযুগীয় পরামর্শ’ অবিলম্বে বাতিল করার দাবি জানিয়েছিলেন।

তিনি বিবিসি-কে বলেন, ‘‘দেখুন শালীন পোশাক বলে কিছু হয় না। পোশাক হয় প্রয়োজনমাফিক। মাঠেঘাটে, স্কুল-কলেজে বা কারখানায় যে মহিলারা কাজ করেন, প্রয়োজন অনুযায়ী তাদের পোশাকও ভিন্ন ভিন্ন হবে। পুলিশকে সেটা বুঝতে হবে।’’