ইবির প্রক্টরকে অব্যাহতি

0
53
EB
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়- ফাইল ছবি
EB
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়- ফাইল ছবি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমানকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে উপাচার্যের বাসভবনে এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। একইসাথে নতুন প্রক্টর হিসেবেসাবেক ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. ত ম লোকমান হাকিমকেদায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এ সম্পর্কে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকার সাংবাদিকদের বলেন, ড. মাহবুবর রহমানকে ভুলক্রটি বা স্পষ্ট কোনো অভিযোগের ভিত্তিতে অব্যাহতি দেওয়া হয়নি। সম্প্রতি একটি মহলের কাছে তিনি অপছন্দনীয় হওয়ায় এবং এ ইস্যুতে ক্যাম্পাস স্বাভাবিক না হওয়ার কোনো সম্ভাবনা না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বৃহত্তর স্বার্থে তাকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বৈঠকে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান, রেজিষ্ট্রার ড.মসলেম উদ্দিনসহ শিক্ষক সংগঠন বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও শাপলা ফোরামের শিক্ষক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান। তিনি বলেন, শিক্ষকদের সাথে আলোচনা করে উপাচার্য মহোদয় আমার বিষয়ে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমি তাকে স্বাগত জানাই।

নতুন প্রক্টর অধ্যাপক ড. ত ম লোকমান হাকিম এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোষ্ট, সহকারী প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রসঙ্গত,গত ২৪ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের গাড়িতে হামলার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ওপর গুলি চালায় পুলিশ। এতে ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধসহ ১৫ জন আহত হয়। এ ঘটনার জন্য ইবিউপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান এবং ছাত্রলীগের একাংশপ্রক্টরকে দায়ী করে তার পদত্যাগ দাবি করেন।

এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ছাত্রলীগের মধ্যে বিভাজন তৈরি হওয়ার ফলেক্যাম্পাস খোলা নিয়ে অচলাবস্থা তৈরি হয়। প্রায় ১৫ দিন বন্ধ থাকার পর আজ মঙ্গলবার ইবি খুলে দেওয়া হয়।

কিন্তু এর আগের দিন রাতে কুষ্টিয়া শহরের কাস্টমস মোড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ডিপোতে ৫টি গাড়ি ভাঙচুর করে দুর্বৃত্তরা।

বাস ভাঙচুরের খবর চাউর হওয়ার পর সকালে কোনো বাস ক্যাম্পাসে যায়নি। ক্যাম্পাসের ভাড়া করা বাসও যেতে রাজি হয়নি।

এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সাধারণ শিক্ষার্থীদের অনেকেই ক্যাম্পাসে যেতে পারেননি।

কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ থেকে শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের বহনকরী বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি না আসায় এই দিন কোনো বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা হয়নি।