আয় ঘুম আয়

0
296
sleepless
নির্ঘুম রাত

মাঝে মাঝে অনেকের চোখ থেকে ঘুম যায় নির্বাসনে। দুচোখে ভর করে ক্লান্তি। এপাশ-ওপাশ করে কাটে বিনিদ্র রাত। এটা যদি হয় রাতের পর রাত তাহলে তার মতো যন্ত্রণা আর হয় না।

রাতে ঘুম ভালো না হলে দিনে মানুষের কর্মক্ষমতা কমে যায়, মেজাজ থাকে খিটখিটে। দীর্ঘকালীন নিদ্রাহীনতা শরীরের প্রতিরোধ শক্তি কমিয়ে দেয়। সহজে দেখা দেয় উচ্চ রক্তচাপ, হৃদযন্ত্রের সমস্যা, বহুমুত্র ও জন্ডিসসহ নানা রোগ।

ঘুমহীন রাত
ঘুমহীন রাত

এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের রচেস্টার মায়ো ক্লিনিকের স্লিপ মেডিসিন কেন্দ্রের সহ পরিচালক এরিক ওলসন এবং ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিক এর স্লিপ ডিসঅর্ডারস কেন্দ্রের ডাক্তার হার্নট ওয়ালিয়ার কিছু পরামর্শ দিয়েছেন।

কেবল ঘুম ধরলেই বিছানায় যান:

ঘুম না ধরলে বিছানায় যাবেন না। ঘুম ধররেই বিছানায় যান।ঘুমোতে যাওয়ার আগে গান শুনুন, হালকা বই পড়ুন, প্রয়োজনে গোসল সেরে বিছানায় যান।

যোগ ও মেডিটেশন অনুশীলন করুন:

ঘুমের জন্য যোগব্যায়াম খুবই কার্যকরী।শবাসনের মতো যোগ শান্তির ঘুম আনে।
স্নায়ুবিজ্ঞান গবেষক ক্যাথেরিন কের বলেন, ঘুমোতো যাওয়ার আগে ধীরে ধীরে শ্বাস-প্রশ্বাসের অভ্যাস গড়ে তুলুন।

অন্যান্য শিথিলকরণ কৌশল চেষ্টা করুন:

পেশী শিথিল করার জন্য কিছু কৌশল অবলম্বন করুন। মনকে শান্ত করার জন্য উল্টো গণণা করতে পারেন।‘ঘুম আসছে না’ এই চিন্তা ঝেড়ে ফেলুন।

উদ্বেগ নিয়ে ঘুমোতে যাবেন না:

উদ্বেগ থেকেও মাঝে মাঝে ঘুম আসে না।প্রতিদিন একটি দুটি উদ্বেগের কারণ লিখুন। কখন, কোথায় উদ্বেগ বেশি হয় তা লিখে রাখুন। এগুলো থেকে উত্তরণের পথ খুঁজে বের করুন। আপনার ব্যবহৃত বিভিন্ন ইলেকট্রনিক সামগ্রী থেকে নির্গত সামান্য আলোও আপনার ঘুমে ব্যাঘাত সৃষ্টি করতে পারে। নীল আলো সবচেয়ে বেশি ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। তাই রাতে এগুলোর ব্যবহার বুঝেশুনেই করুন।

ঘড়ি দেখবেন না:

আপনি ঠিক সময়ে ঘুম থেকে উঠতে পারবেন কিনা এই উদ্বেগ নিয়ে ঘুমাতে যাবেন না। প্রতিদিন একই সময়ে ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

ঘুমের ওষুধকে না:

ঘুম আসছে না বলে প্রথমেই ঘুমের ওষুধ সঙ্গী করবে না। বিশেষ প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শে ওষুধ সেবন করুন। দিনে কখনো ঘুমের ওষুধ নেবেন না।

দরকার শান্তির বেডরুম:

শোবার ঘরটি যেন হয় পরিষ্কার, অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং শীতল। ঘুমের আগে কফি ,সিগারেট এবং অ্যালকোহল পরিহার করুন।ঘুমোনোর ঘরে টিভি রাখবেন না।

ডাক্তারের পরামর্শ নিন:

আপনার অনিদ্রা যদি দীর্ঘদিন চলতে থাকে তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে

ইউএম/