‘সামাজিক সুরক্ষার জন্য শক্তিশালী পেনশন ব্যবস্থা প্রয়োজন’

  • Musanna Sakib
  • September 2, 2021
  • Comments Off on ‘সামাজিক সুরক্ষার জন্য শক্তিশালী পেনশন ব্যবস্থা প্রয়োজন’

আয়ু বৃদ্ধি, বর্ধিত পরিবার ব্যবস্থার ক্রমশ বিলুপ্তি বাংলাদেশে বার্ধক্যে দরিদ্রতা এবং সামাজিক দুঃখ-দুর্দশা এড়াতে একটি শক্তিশালী পেনশন ব্যবস্থা প্রণয়ন করা অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। স্মার্ট নীতিগত হস্তক্ষেপ আসন্ন পেনশন ব্যবস্থা উন্নয়নে সাহায্য করতে পারে। স্টক বা বন্ডে বিনিয়োগের বিকল্প সহ একটি সম্পূর্ণ অর্থায়িত পেনশন ব্যবস্থা চালু করা দরকার ।

আজ বৃহস্পতিবার (২, সেপ্টেম্বর) ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) কর্তৃক আয়োজিত  “বার্ধক্যে দরিদ্রতা এড়ানোর এবং সামাজিক সুরক্ষার জন্য শক্তিশালী পেনশন ব্যবস্থা প্রয়োজন” ভিত্তিক একটি ওয়েবিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।

ওয়েবিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার রিসার্চ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সত্যজিৎ কর্মকার, অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রবিধান) মো. গোলাম মোস্তফা। প্যানেল স্পিকার হিসেবে ওয়েবিনারে অংশগ্রহণ করেন সরকারের ইউনিভার্সাল পেনশন রিফর্ম ইন্টারন্যাশনাল এক্সপার্ট এবং কনসালটেন্ট, ডা. কাবিম ভি ভাটনাগর এবং পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক, আহসান এইচ মনসুর।

ওয়েবিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইসিএবি সভাপতি মাহমুদউল হাসান খসরু এফসিএ এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের লিড গভর্নেন্স স্পেশালিস্ট-ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট, সুরাইয়া জান্নাথ খান এফসিএ ।

বক্তারা বলেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী ব্যাপক পেনশন কভারেজ প্রদানের যৌক্তিকতার সাথে ‘ইউনিভার্সাল পেনশন স্কিম প্রবর্তন’ ঘোষণা করেন। বাজেট বক্তৃতায় বলা হয়েছে, “যেহেতু সরকারী পেনশনভোগীরা মোট জনসংখ্যার একটি ক্ষুদ্র অংশ, তাই সরকার একটি বৃহত্তর কভারেজের পরিকল্পনা করছে। অর্থনীতির আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত সকলের জন্য সার্বজনীন পেনশন ধীরে ধীরে প্রবর্তনের একটি কর্তৃপক্ষ গঠনেরও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সার্বজনীন পেনশন হল রাষ্ট্র থেকে একজন ব্যক্তির কাছে অর্থ প্রদানের একটি ধারা যা শুরু হয় যখন কেউ অবসর গ্রহণ করে এবং অর্থ প্রদান অব্যাহত থাকে যতক্ষণ না জীাবত থাকে। ইউনিভার্সাল পেনশন অন্যান্য ধরণের পেনশন থেকে আলাদা কারণ এর যোগ্যতার মানদণ্ডে কোনো ব্যক্তির প্রাক্তন অবদানের প্রয়োজন হয় না, কিন্তু তার নাগরিকত্ব বা আবাস এবং বয়স বা অন্যান্য মানদণ্ড সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ।

বর্তমানে, সরকারি চাকুরি ব্যতীত জাতীয় স্কেলে বাংলাদেশে কোনো আনুষ্ঠানিক পেনশন ব্যবস্থা নেই। সরকারি কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ১.৪ মিলিয়ন, যা বেসরকারি ও সরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানে নিযুক্ত মোট কর্মীর মাত্র ৫%।

১৮৭১ সালের পেনশন আইন অনুসারে সকল সরকারি কর্মচারী অবসর পরবর্তী পেনশন পাওয়ার অধিকার রাখে। সরকারের বেসামরিক কর্মচারীদের পেনশন অনুমোদন ও প্রদানের ক্ষেত্রে পেনশন বিধি ও পদ্ধতির আরও সরলীকরণ ২৭ জানুয়ারি ২০০৯ সালে করা হয়েছিল- ওয়েবিনারে উপস্থাপিত প্রবন্ধে বক্তারা এসব তথ্য তুলে ধরেন।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, একটি আধুনিক-দক্ষ পেনশন প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থা সরকারি কর্মচারীদের উন্নত সেবায় সরাসরি অবদান রাখে। পেনশন যেহেতু সরকারি ব্যয়ের একটি উল্লেখযোগ্য আকার গঠন করে, একটি সুশাসিত পেনশন ব্যবস্থা দক্ষ আর্থিক ব্যবস্থাপনায়ও অবদান রাখে এবং সিস্টেমের ক্ষতির ঝুঁকি হ্রাস করে, তিনি বলেন উপরন্তু, সরকারি কর্মচারীরা সংস্কারের সরাসরি সুবিধাভোগী হয়ে ওঠে যা বাস্তবায়িত হয়েছে পিএফএম সিস্টেম এবং প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে দশক।

সিনিয়র সচিব আরও বলেন, সুশাসন এবং সকল ক্ষেত্রে দক্ষ সেবা প্রদানের অঙ্গীকারের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ সরকার পেনশন বেতন ও প্রশাসনকে আধুনিকীকরণের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

সিভিল সার্ভিস পেনশনের প্রশাসনকে আধুনিকীকরণের প্রয়োজনীয়তা বিশ্লেষণ ও জরিপের পর, এমওএফ -এর অর্থ বিভাগ বেতন এবং কর্মীদের রেকর্ড সংহত করার উদ্যোগ নিয়েছে।

আইসিএবি সভাপতি মাহমুদুল হাসান খুসরু এফসিএ বলেছেন, বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে এবং নিম্ন-আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে দ্বৈত গ্র্যাজুয়েশনের যাত্রা, এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নীতিগুলি ডিজাইন এবং অনুসরণ করার প্রয়োজন রয়েছে। উন্নত সামাজিক কল্যাণ এবং আরো অর্থনৈতিকভাবে নিরাপদ জীবনের জন্য তার নাগরিকদের প্রত্যাশা ক্রমবর্ধমান।

এই মহামারী চলাকালীন ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে বৈষম্য বেড়েছে এবং মধ্যম আয়ের জনগোষ্ঠী তাদের চাকরি হারানোর কারণে দরিদ্র হয়ে উঠেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে বৈষম্য গুরুতর উদ্বেগের কারণ, একটি ইউনিভার্সাল পেনশন সিস্টেম আয়ের বন্টনে এই বৈষম্য কমাতে একটি হাতিয়ার হিসেবে কাজ করতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে সামাজিক সুরক্ষার ভিত্তি হিসেবে ইউপিএস এসডিজির চেতনা এবং এসডিজির আকাঙ্ক্ষার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং এসডিজির মানদণ্ড পূরণ করে।

বিশ্বব্যাংকের লিড গভর্নেন্স স্পেশালিস্ট এবং মূল উপস্থাপক সুরাইয়া জান্নাত খান এফসিএ বলেন, অবসরপ্রাপ্তদের অনুমান এবং মুদ্রাস্ফীতির জন্য সমন্বিত সুবিধাগুলির উপর ভিত্তি করে পেনশন বাজেট প্রণয়ন করা হয়। পেনশন ব্যয় অপারেটিং বাজেটে বরাদ্দ করা হয়, এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধ পেনশন দায়সমূহ হল জিওবি-র একটি বাধ্যতামূলক প্রদেয় বাধ্যবাধকতা। পেনশন ব্যয় চলতি অর্থবছরের বর্তমান ব্যয়ের ৬.৫ শতাংশ এবং বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। পেনশন ব্যয় ১৬ অর্থবছরে ১০৬.৩ বিলিয়ন টাকা থেকে ১৭ অর্থবছরে ১২৬.৭ বিলিয়ন এবং বরাদ্দ আরও বেড়ে দাঁড়ায় কোটি টাকায়। ১৮ বাজেটে ২২৯.৪ বিলিয়ন বা বর্তমান ব্যয়ের ৯.৮ শতাংশ, তিনি তার গবেষণাপত্রে উল্লেখ্য করেন ।

তিনি আরও বলেন যে, পাবলিক ব্যয় এবং আর্থিক জবাবদিহিতা (পিইএফএ) রিপোর্ট ২০১৫ সরকারী কর্মচারীদের পেনশন সিস্টেমের বর্তমান স্টকের উপর দুর্বল নিয়ন্ত্রণ নির্দেশ করে এবং বাংলাদেশের সিভিল সার্ভিস পেনশন প্রশাসন ব্যবস্থার একটি ডব্লিউবি নীতি নোট মসৃণ পেমেন্ট নিশ্চিত করার জন্য চারটি অগ্রাধিকারমূলক পদক্ষেপ প্রস্তাব করে; একটি কেন্দ্রীয় পেনশন সেল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে প্রশাসনিক ব্যবস্থাগুলিকে শক্তিশালী করা, সরলীকৃত প্রক্রিয়া হিসাব ও পেমেন্ট ব্যবস্থা, পেনশন মামলার ব্যাকলগ দূর করা।

পেনশন পেমেন্টের জন্য পেনশন কেস প্রিপারেশন এবং পিপিও ইস্যু করার ফাংশন আলাদা করে সিস্টেমে চেক অ্যান্ড ব্যালেন্স শক্তিশালী করা প্রয়োজন, তিনি মনে করেন, সরকার ইএফটি পেমেন্টের ক্ষমতা সহ পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় পেনশন রোল প্রতিষ্ঠা করেছে এবং এটি এখন ২০১৯ থেকে চালু আছে।

অর্থসূচক/এমআর