শেফালী ঘোষের মৃত্যুবার্ষিকি আজ

shafaliচট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানের কিংবদন্তি শিল্পী শেফালী ঘোষের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকি আজ। ২০০৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন এই কিংবদন্তি।

‘ওরে সাম্পানওয়ালা তুই আমারে করলি দেওয়ানা’, ‘শঙ্খনদীর মাঝি আঁই তোয়ার লগে রাজি’,  ‘সূর্য উডের অভাই লাল মারি’, ‘নাতিন বরই খা’, ‘ও বানু বানুরে’, ‘ভাঙা গাছর নয়া টেইল’, ও ‘পালে কী রং লাগাইলিরে মাঝি’র মতো অসংখ্য গান গেয়ে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠেছেন তিনি। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানকে ছড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্বের নানা প্রান্তে।

বোয়ালখালী উপজেলার কানুনগো পাড়াযর মেয়েটি ১৯৬০ সালে গান শেখার জন্য চট্টগ্রাম আসেন। অল্প সময়ের মধ্যে শ্রোতাদের মন জয় করে নেন।

শেফালী ঘোষ মুক্তিযুদ্ধের সময় গান গেয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করেন। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে তার দুই হাজারেরও বেশী গান রয়েছে। তার গানের অ্যালবামের সংখ্যা প্রায় ১৫০। এছাড়া তিনি ২০টি চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেছেন।

শেফালী ঘোষ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের ২০টিরও বেশি দেশে সঙ্গীত পরিবেশন করেছেন। লাভ করেছেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক পদক (১৯৯০), বাংলা একাডেমির আজীবন সম্মাননা (২০০২), শিল্পকলা একাডেমি পদক (২০০৩) ও একুশে পদকে (২০০৬, মরণোত্তর)।