মৃত্যুদন্ড হতে পারে সৌদি ব্লগারের

soudi bloggerধর্মদ্রোহিতার কারণে মৃত্যুদন্ড হতে পারে সৌদি ব্লগারের। দেশটির একজন বিচারক ঐ ব্লগারকে অভিযুক্ত করে উচ্চ আদালতে বিচারের সুপারিশ করেছেন। খবর সিএনএনের।

কঠোর ধর্মীয় অনুশাসনে পরিচালিত সৌদি আরবে ধর্মদ্রোহিতার শাস্তি মৃত্যুদন্ড। তাই এই সুপারিশকে মৃত্যুদন্ডের রায় ভেবে শংকিত ব্লগারের স্ত্রী।

 

রাইফ বাদায়ি নামের এই ব্লগার বর্তমানে কারাগারে বন্দি রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ইন্টারনেট এবং গণমাধ্যমে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

তার স্ত্রী এনসাফ হায়দার জানান, তাকে উচ্চ আদালতে বিচারের সুপারিশ করা হয়েছে। যা প্রকৃতপক্ষে মৃত্যুদন্ডের ঘোষণা।

এই ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়েছে অ্যামিনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও। এক বিবৃতিতে সংগঠনটি এই পদক্ষেপকে সৌদি জনগণের মুক্ত আলোচনা জন্য ভীতি প্রদর্শন বলে অভিহিত করেছে।

উল্লেখ্য ধর্মদ্রোহের অভিযোগে বাদায়ি ২০০৮ সালে প্রথম গ্রেপ্তার হন। একদিন জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। ২০১২ সালের ১৭ই জুন ইন্টারনেটে ধর্মীকে অবমাননার অভিযোগে তাকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। ঐ বছরের ১৭ই ডিসেম্বর ফ্রি সৌদি লিবারেল নামের ওয়েবসাইট চালানোর অভিযোগে তাকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। ২০১৩ সালের সৌদি গণমাধ্যমে তার সাত বছরের কারাদন্ড এবং ৬০০ বেত্রাঘাতের শাস্তির খবর প্রকাশিত হয়।