পোল্ট্রি খাতের বিনিয়োগে লাভের মুখ দেখছে না খামারিরা

Poltry_newsপোল্ট্রি খাতে ২৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ এবং বার্ষিক ৩০ হাজার কোটি টাকার টার্নওভার মুখ থুবড়ে পড়েছে বলে জানিয়েছেন পোল্ট্রি খামারিরা।

বৃহস্পতিবার ১২টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে পোল্ট্রি বিষয়ক জাতীয় সমন্বয় কমিটির ব্যানারে ছয়টি পোল্ট্রি সংগঠন মানববন্ধনে এসব কথা জানান।

মানববন্ধনে ঢাকা, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, কুমিল্লাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রায় ৫ হাজার খামারি এ মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে কমিটির আহ্বায়ক মসিউর রহমান বলেন, পোল্ট্রিশিল্পের ভয়াবহ বিপর্যয়ে সরকারের নির্জীব ভুমিকার কারণে প্রতি সপ্তাহে প্রায় ১৫ হাজার মেট্রিক টন ব্রয়লার মুরগীর মাংস এবং প্রায় তিন কোটি ১৫ লাখ  মুরগি অবিক্রিত থাকার কারণে নষ্ট হচ্ছে। ফলে দেশে কৃষিখাতের পর বাংলাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তমখাত পোল্ট্রিশিল্পখাতটি ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। সারা বাংলাদেশে এ শিল্পের সাথে জড়িত কয়েক হাজার পরিবার জড়িত। আর এ শিল্প বন্ধ হয়ে গেলে বেকার হয়ে পড়বে লাখ লাখ শ্রমিক।

মানববন্ধনের ব্রিডার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের মহাসচিব সাইদুর রহমান বাবু বলেন, প্রতিদিন উৎপাদন খরচ থেকেও ৩০-৪০ শতাংশ টাকা লোকসান দিতে হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে ক্রমান্বয়ে দেশের সবগুলো খামার বন্ধ হয়ে যাবে।

এ সময ফিড ইন্ড্রস্ট্রিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাধারণ সম্পাদক ফজলে রহিম খান শাহরিয়ার বলেন, পোল্ট্রি খাতে গত ৩ মাসে প্রায় এক হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশ এগ প্রডিউসারস এসোসিয়েশনের সভাপতি তাহের আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, সরকারীভাবে নিবন্ধিত এক হাজার থেকে পাঁচ হাজার লেয়ার ও ব্রয়লার মুরগী পালনকারী খামারীদের জন্য অন্তত ২ বছর মেয়াদি সুদমুক্ত ঋণ দেওয়া দাবি জানিয়েছেন।

এ সময় সারাদেশে বার্ডফ্লুর ভেকসিন ব্যবহারের অনুমতি দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন আফতাব গ্রুপের এমডি আবু মোকসেদ ফজলে রহিম খান, কাজী গ্রুপের এমডি কাজী জাহেদুল হাসান, বিএবিএর সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান বাবু প্রমুখ।

জেইউ/