এক লাখ টাকা ন্যূনতম বেতন দাবি অভিবাসী শিল্প শ্রমিকদের

Salary

Salaryসৌদি আরবে অভিবাসী শিল্প শ্রমিকরা তাদের বেতন-ভাতা বাড়িয়ে তিনগুণ করার দাবি তুলেছে।দেশটিতে বর্তমানে শিল্প শ্রমিকদের মাসিক বেতন এক হাজার থেকে এক হাজার ৮০০ রিয়াল। বাংলাদেশী মুদ্রায় যার পরিমাণ ২০ হাজার থেকে ৩৬ হাজার টাকা। শ্রমিকরা এটি বাড়িয়ে পাঁচ হাজার রিয়াল (প্রায় এক লাখ টাকা) নির্ধারনের দাবি জানিয়েছে। তারা বলেছে, এর চেয়ে কম বেতনে তাদের পক্ষে খেয়ে-পড়ে বাঁচা সম্ভব নয়। খবর আরব নিউজের।

শ্রমিকরা জানিয়েছে,তাদের কোম্পানি কর্তৃপক্ষ বেতন-ভাতা বাড়ানোর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে। অবৈধ অভিবাসী বিরোধী অভিযানে কারখানাগুলোতে শ্রমিক সংকট দেখা দেওয়ায় কর্তৃপক্ষ বিদ্যমান শ্রমিকদের উৎপাদনশীলতা বাড়িয়ে তা পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে।কিন্তু এর বিপরীতে শ্রমিকদের জন্য কিছুই করতে সম্মত নয় তারা।

সৌদি আরবের বিভিন্ন শিল্প-কারখানার ৯০ ভাগ পর্ন্ত শ্রমিক বিদেশী।আর এদের একটা বড় অংশ বাংলাদেশ,ভারত,পাকিস্তান,নেপাল ও শ্রীলংকার।এর বাইরে ইয়েমেন,জর্ডান,সিরিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের শ্রমিকও রয়েছে সৌদি শিল্প খাতে।

সৌদি শ্রম মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হাতাব আল ইনিজি বলেছেন,তার দেশে ন্যূনতম মজুরির কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। এছাড়া বেসরকারি খাতের শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো এ মুহুর্তে শ্রমিকদের বেতন-ভাতা বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনাও করছে না,তা স্থানীয় বা বিদেশী-যাই হোক।
ইয়েমেনের শ্রমিক মাহমুদ ওমর জেদ্দায় একটি খাদ্য প্রস্তুতকারী কারখানায় কাজ করেন। তিনি বলেন,আমি হাড়ভাঙ্গ কাজ করে মাসে মাত্র এক হাজার রিয়াল বেতন পাই।এটা দিয়ে টিকে থাকা খুবই কঠিন।কর্তৃপক্ষকে বেতন বাড়ানোর অনুরোধ জানানো হলেও তারা তাতে সাড়া দিচ্ছে না।

এদিকে সৌদি মানবাধিকার সংস্থা ন্যাশনাল সোসাইটি ফর হিউম্যান রাইটস (এনএসএইচআর) বলেছে, তারা অভিবাসী শ্রমিকদের প্রকৃত বেতন ও কাজের পরিবেশ সম্পর্কে জানতে শিগগীরই বিভিন্ন কারখানা পরিদর্শন করবে।