এক ম্যাচ বাকী থাকতেই সিরিজ জয় পাকিস্তানের

Pakistan Cricket

মোহাম্মদ হাফিজের অসাধারণ ব্যাটিং নৈপূণ্যে এক ম্যাচ বাকী থাকতেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে পাকিস্তান। সিরিজে হাফিজের তিন শতকে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেলো পাকিস্তান। হাফিজের ১১৩ রানে ৪র্থ ম্যাচে ৫৩ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের বড় জয় তুলে নেয় তারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা ৪৮.৫ ওভার ২২৫(প্রিয়ঞ্জন ৭৪,সাঙ্গাকারা ৫১,ম্যাথিউজ ৩৮)
পাকিস্তান ৪১.১ ওভারে ২২৬/২ (হাফিজ অপ:১১৩, মাকসুদ অপ:৪৬)

 

বুধবার আবু দাবিতে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়  আগের ৩ ম্যাচে প্রথমে ফ্লিডিং করা শ্রীলঙ্কা। কিন্তু পাকিস্তানি বোলারদের আক্রমনান্তক বোলিংয়ে শুরু থেকেই চাপে পড়ে ২২৫ রানেই শেষ হয় তাদের ইনিংস। দলীয় ৩৬ রানেই  ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে লঙ্কানরা। কুমার সাঙ্গাকারা বিপদ কিছুটা সামাল দিলেও ব্যাক্তিগত ৫১ রান করে রান আউট হওয়ার পর আশান প্রিয়ঞ্জন ছাড়া তেমন কেউ বড় ইনিংস খেলতে পারেনি। প্রিয়ঞ্জন ১১২ বল খেলে ৭৪ রান করেন। তাছাড়া ম্যাথুজ ৩৮ রান করেন। পাকিস্তানের পক্ষে সাঈদ আজমল ৩৯ রানে ৪টি এবং উমর গুল ৩৭ রানে ৩ উইকেট লাভ করেন।

২২৬ রানের সহজ লক্ষ্যে খেলতে নেমে বেশ ইতিবাচক শুরু করে পাকিস্তান। তবে দলীয় ৩১ রানে লঙ্কান অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথ্যুজের বলে ১৩ রান করে ওপেনার শারজিল খান ফিরে যান। এরপরই আগের ম্যাচসহ সিরিজে ৩ ম্যাচে দুই সেঞ্চুরি করা হাফিজ উইকেটে গিয়েই পাল্টে দেন খেলার চালচিত্র। লঙ্কান বোলারদের অসহায় করে মাত্র ৩৮ বলেই অর্ধশতক পূর্ণ করেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। আরেক ওপেনার আহমেদ শেহজাদও ৫৬ বলে ৫ চারে ৪৪ রানের সাবলিল ইনিংস খেলে দলীয় ১১৫ রানে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন।

কিন্তু তাতেও দমে যাননি হাফিজ। সোহাইব মাকসুদকে সঙ্গী করে তৃতীয় উইকেট জুটিতে অবিচ্ছিন্ন ১১১ রান করে দলকে ৫৩ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটের বড় জয় পাইয়ে দেন। একই সঙ্গে সিরিজ জয়ও নিশ্চিত হয় পাকিস্তানের। চলতি সিরিজে পাকিস্তানের জেতা ৩ ম্যাচেই ছিলো হাফিজের গুরুত্বপূর্ণ অবদান। এই ৩ ম্যাচেই শতরানের ইনিংস উপহার দেন তিনি দলকে। হাফিজ শেষ পর্যন্ত ১১৯ বলে ১২ চার ও ২ ছক্কায় ১১৩ রানে অপরাজিত থাকেন।এছাড়া শোয়াইব মাকসুদও ৪৬ রানে অপরাজিত থাকেন।
শ্রীলঙ্কার পক্ষে অধিনায়ক ম্যাথ্যুজ ও সুরঙ্গ লাকমাল উইকেট দুটি নেন। হাফিজ অবধারিতভাবে ম্যাচসেরা খেলোয়াড় মনোনীত হন।

 

এইউ নয়ন