২৯ ডিসেম্বর বাধা দিলে পতাকা দিয়েই প্রতিহত: মাহবুব

খন্দকার মাহবুব হোসেন
সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়াশনের সভাপতি এ্যাড. খন্দকার মাহবুব হোসেন

mahbubডিসেম্বর জাতীয় পতাকা হাতে ঢাকাগামী ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’তে বাধা দিলে পতাকা দিয়েই সকল বাধা প্রতিহত করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস-চেয়ারম্যান ও বিএনপি চেয়ারর্পাসনের উপদেষ্টা এড. খন্দকার মাহবুব হোসেন।

এ সময় দলের নেতা কর্মীদের উদ্দেশ্যে মাহবুব বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দিলেও জাতীয় পতাকাকে সমুন্নত রেখে সকল বাধা ডিঙ্গিয়ে ঢাকায় আসতে হবে।

বুধবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের হলরুমে বাংলাদেশ জাতীয়াতাবাদী মৎস্যজীবী দলের আয়োজিত ‘অবরুদ্ধ গণতন্ত্র ও প্রহসনের নির্বাচন’ উত্তরণের উপায় র্শীষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

২৯ ডিসেম্বরের কর্মসূচি সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের গণতান্ত্রিক আন্দেলনে সরকারের পেটোয়া বাহিনী কোনো রকম বাধা দেওয়া চেষ্টা করলে তার পরিণাম শুভ হবে না। আর এ বাধার কারণে কোনো অঘটন ঘটলে তার সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে।
আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা দেশের জনগণের টাকা দিয়ে আপনাদেও বেতন-ভাতা দেওয়া হয়। আপনারা জনগণের ভাই-বন্ধু। আর ২৯ ডিসেম্বর আপনাদেরই ভাই-বোনেরা গণতন্ত্র রক্ষার আন্দেলনে রাজপথে নামবে। আপনারা গুলি চালানোর আগে দেখে নিবেন কাদের বুকে গুলি চালাচ্ছেন। তাই অনুরোধ আপনাদেও ভাই-বোনদেও রক্তাক্ত করবেন না।

গণতন্ত্র রক্ষা সম্পর্কে মাহবুব বলেন, শেখ হাসিনা একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করে গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছে। তাই আজ এ মৃত গণতন্ত্রকে যে কোনো উপায়ে উদ্ধার করতে হবে।
শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, নির্বাচন নিয়ে বহু খেল খেলছেন। এখন এ ছেলে খেলা বন্ধ করে সোজা পথে আসুন। কোন ভাবেই বাংলার বুকে এক তরফা নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না। জনগণ আপনার এ ছেলে খেলা নির্বাচন মেনে নিবে না।
তত্ত্বাবধায়ক সম্পর্কে তিনি বলেন, ৯৬ সালে আপনারাই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য রাস্তায় নেমে আন্দোলন করছেন। এ পর্যন্ত তিনটি নির্বাচন তত্ত্বাবধায়কের অধীনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তত্বাবধায়কের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মাধ্যমেই আজ আপনারা ক্ষমতায় এসেছেন। আদালত আরও দুইটি নির্বাচন তত্বাবধায়কের অধীনে করার কথা বললেও আপনার এক গুঁয়েমি করছেন।

তিনি বলেন, এ দেশের মানুষ প্রয়োজনে আন্দোলন করে রক্ত দিবে তবুও বাংলাদেশকে তাবেদার রাষ্ট্রে পরিণত হতে দিবে না।
সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়ালের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আহসান হাবিব কামাল ও সংঠনের নেতৃবৃন্দ।

জেইউ/ এআর