একাদশ নয় দশম সংসদ নির্বাচন নিয়ে ভাবুন: খন্দকার মাহবুব

mahbub

mahbubএকাদশ সংসদ নির্বাচানের কথা ভুলে গিয়ে দশম সংসদ নির্বাচনের কথা ভাবুন। দশম সংসদ নির্বাচন করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ভাবেন শেখ হাসিনাকে এমন পরামর্শ দিলেন বার বাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।

শুক্রবার বেলা ১২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে অল কমিউনিটি ফোরাম আয়োজিত ‘বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংকট ও বিদেশিদের সম্পৃক্ততা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে খন্দকার মাহবুব বলেন, ক্ষমতায় আসার পর আপনি অনেক খেলা খেলছেন, অনেক চমক দেখিয়েছেন। একটার পর একটা ইস্যু তৈরি করে জনগণের দৃষ্টিকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছেন। এবার আর কোনো ইস্যু পাবেন না। আপনার বিদায় সন্নিকটে।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া অত্যন্ত ধৈর্য্যশীল রাজনীতিবিদ। তবে তিনি যদি রাস্তায় নেমে আসেন তাহলে গোটা দেশ জ্বলবে। আর তখন আপনার পতন সুনিশ্চিত হবে। তাই সময় থাকতে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নতুন তফসিল ঘোষণা করে একটি অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন দিন।

যারা জ্বালাও-পোড়াও করে অবরোধ পালন করে তাদের কি স্ত্রী-সন্তান নেই, তারা কি ভুলে গেছে তাদেরকে চিহ্নিত করা হবে না? শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের জবাবে মাহবুব বলেন, আপনার আজ্ঞাবহ পেটোয়া বাহিনীর যারা গুলি করে পাখির মত মানুষ হত্যা করছে তাদের কি স্ত্রী-ছেলেমেয়ে নাই? তারা কি জবাব দিবে।

তত্ত্বাবধায়ক সম্পর্কে তিনি বলেন, যেখানে আপিল বিভাগ বলছে আরও দুইটি নির্বাচন তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে করা উচিত সেখানে আপনি একগেঁয়েমি সিদ্ধান্ত নিয়ে একতরফা নির্বাচন দিয়ে দেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছেন।

হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি কেএম হাসান অনেকদিন আগে বিএনপির ছোট একটা পদে থাকার কারণে আপনি তাকে তত্বাবধায়কের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে মেনে নেননি। এখন সবক্ষমতা আপনার হাতে থাকার পর কিভাবে জনগণ আপনাকে সর্বদলীয সরকারের প্রধান হিসেবে মেনে নিবে।

নির্বাচন কমিশনকে হুঁশিয়ার করে তিনি বলেন, সেনাবাহিনীকে ব্যবহার করে যে নির্বাচন করার স্বপ্ন দেখছেন তা কখনও বাস্তবায়ন হবে না। দেশবাসী এ প্রহসনের নির্বাচন মেনে নিবে না।

ফোরামের উপদেষ্টা ইঞ্জিনিয়ার মো: আশরাফ উদ্দিন বকুলের সভাপতিত্ত্বে আরও বক্তব্য রাখেন চেয়ারর্পাসন উপদেষ্টা মে: জে: (অব:) রুহুল আলম চোধুরী, উপদেষ্টা অ্যা. আহমেদ আজম খান, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ তথ্য গবেষণা সম্পাদক হাবিবুর রহমান, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য জেবা খান, ফোরামের সাধারন সম্পাদক কাবিরুল হায়দার চৌধরী,  সাংগঠনিক-সম্পাদক রমজান আলী ভূঁইয়া প্রমুখ।

জেইউ/এএস