আইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় মৃত্যুবাষির্কীতে যে সরকারি উদ্যোগ নেয়া হল

‘এই রুপালী গিটার ফেলে, এক দিন চলে যাবো দূরে বহু দূরে… গানে গানে কথা গুলো বলে গিয়েছিলেন বাংলা ব্যান্ড সঙ্গীতের কিংবদন্তী শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। গানের কথার মতই রুপালী গিটার ফেলে তারা ভরা রাতের শেষে এক সকালে সবাইকে কাঁদিয়ে উড়াল দিয়েছিলেন আকাশে।

২০১৮ সালের (১৮ অক্টোবর) এই দিনে সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে স্কয়ার হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন আইয়ুব বাচ্চু। দেখতে দেখতে আজ ২ বছর হয়ে গেল তাকে হারানোর।

এদিকে গুনী এই সংগীতশিল্পীর দ্বিতীয় মৃত্যুবাষির্কীতে সরকারি উদ্যোগে সংরক্ষিত হচ্ছে আইয়ুব বাচ্চুর গান। এর মাধ্যমে প্রথম বাংলাদেশি কোনো সংগীত তারকা, যার গান সরকারি ব্যবস্থাপনায় সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

কপিরাইট অফিসের উদ্যোগে আইয়ুব বাচ্চু স্মরণে খোলা হয়েছ ওয়েবসাইট। এতে ২৭২টি গান সংরক্ষণ করা হয়। ওয়েবসাইটের পাশাপাশি আইয়ুব বাচ্চুর নামে খোলা হয়েছে ইউটিউব চ্যানেলও। সংগীতের মহান এই তারকার প্রতি সম্মান জানিয়ে এই প্রথম কপিরাইট অফিসের উদ্যোগে তার নানা স্মৃতি, গান রক্ষার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইউটিউবে গিয়ে আইয়ুব বাচ্চুর যত গান এবং ওয়েবসাইটে ঢুকে তার সম্পর্কে জানা যাবে অনেক তথ্য।

১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রাম শহরে জন্মগ্রহণ করেন এ গুণী শিল্পী। সংগীত জীবনের দীর্ঘ চার দশকে অসংখ্য হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া গান তিনি উপহার দিয়েছেন শ্রোতাদের। তার সৃষ্টি অনেক গান মানুষের আন্তরে গেঁথে আছে।

জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর সংগীত জগতে যাত্রা হয় ১৯৭৮ সালে ‘ফিলিংস’ ব্যান্ডের মাধ্যমে। শ্রোতা-ভক্তদের কাছে এবি নামেও পরিচিত তিনি। ডাক নাম রবিন। মূলত রক ঘরানার কণ্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সংগীত এবং লোকগীতি দিয়ে শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন। ১৯৯১ সালে জন্ম নেওয়া ‘এলআরবি’ ব্যান্ড দলের লিড গিটারিস্ট ও ভোকাল তিনি। এর আগে তিনি প্রায় দশ বছর সোলস ব্যান্ডের সঙ্গে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন।

তার উল্লেখযোগ্য গানগুলোর মধ্যে রয়েছে, ‘চলো বদলে যাই’, ‘রূপালি গিটার’ ‘কষ্ট পেতে ভালোবাসি’ ‘ঘুম ভাঙ্গা শহরে’, ‘হকার’ ‘অবাক হৃদয়’ ‘আমিও মানুষ’ ‘কষ্ট কাকে বলে’, ‘সুখ’, ‘মন চাইলে মন পাবে’সহ অসংখ্য গান।

অর্থসূচক/এমএস