স্মার্টফোন হলো আরও স্মার্ট

বিশ্বের প্রথম কোম্পানি হিসেবে মোবাইল ফোনে ফাইভ ন্যানোমিটার চিপসেট ব্যবহার করেছে অ্যাপল। আইফোন ১২ লাইন-আপের সবকটি ফোনেই এ১৪ বায়োনিক প্রসেসর ব্যবহৃত হচ্ছে যা ফাইভ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির প্রসেসর। ফাইভ ন্যানোমিটার বলতে বোঝানো হচ্ছে আইফোন ১২ এর প্রসেসরে যেসব ট্রানজিস্টার ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো কেবল পাঁচ ন্যানোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট। ক্ষুদ্রতার দিক থেকে চিন্তা করলে যা ২৫টির অনুর সমান।

বর্তমানে মোবাইল ফোনের প্রসেসরে যেসব ট্রানজিস্টার ব্যবহার হচ্ছে সেগুলো ৭ ন্যানোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট। অর্থাৎ একই আয়তনের প্রসেসরের মধ্যেই আরও কোটি কোটি ট্রানজিস্টার ব্যবহার করা যাবে যা স্মার্টফোনের ক্ষমতাকে আরও বাড়িয়ে দেবে। অর্থাৎ স্মার্টফোন হয়ে উঠবে আরও স্মার্ট।

বলা হচ্ছে, ফাইভ ন্যানোমিটার চিপসেট স্মার্টফোনের সক্ষমতাকে এতোটাই বাড়িয়ে দেবে যে মোবাইল ফোনেই এখন ফোরকে ভিডিও এডিট করা সম্ভব হবে। সেই সঙ্গে জটিল ক্যালকুলেশনগুলোর জন্য দূরবর্তী ইন্টারনেট সার্ভার ব্যবহার করতে হবে না আর। মোবাইল ফোনেই করে ফেলা যাবে। যা মোবাইল এক্সপেরিয়েন্সকে করবে আরও উন্নত।

সেভেন ন্যানোমিটার চিপ মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ছাড়াই ফেইস রিকগনিশান, বয়স নির্ণয়ের মতো মেশিন লার্নিং অ্যালগরিদমগুলো চালাতে সক্ষম। ফাইভ ন্যানোমিটার চিপ এই সক্ষমতার দিগন্তকে আরও প্রশারিত করবে। কেবল পারফরম্যান্সই নয়। ফাইভ ন্যানোমিটারের চিপগুলোতে বিদ্যুৎ খরচও কম।

চিপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টিএমএসসির ভাষ্যমতে, একই চার্জ খরচে ফাইভ ন্যানোমিটার চিপ সেভেন ন্যানোমিটারের তুলনায় ১৫ শতাংশ বেশি পারফরম্যান্স বুস্ট দেবে। অর্থাৎ, একই পারফম্যান্সে মোবাইল ফোনে চার্জ থাকবে আরও দীর্ঘ সময় ধরে। ফাইভজি প্রযুক্তিতে চার্জের সমস্যাটি ফাইভ ন্যানোমিটার চিপের মাধ্যমে সমাধান হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফাইভজি ইন্টারনেট প্রযুক্তি ফোরজি থেকে বেশি চার্জ খরচ করে।

অর্থাৎ, আইফোন ১২তে ফাইভজি ইন্টারনেট ব্যবহার করলেও মোবাইলের ব্যাটারি লাইফের তেমন একটা অবনমন দেখা যাবে না। বাড়তি ব্যাটারিলাইফ মোবাইল ফোনে হাই রিফ্রেশ রেটের ডিসপ্লেকে মূলধারায় আনতে পারবে। যা ভিজ্যুয়াল এক্সপেরিয়েন্সকে করবে আরও উন্নত।

ফাইভ ন্যানোমিটার চিপসেটের সম্ভাবনার শেষ নেই। আগামী ডিসেম্বরে স্যামসাংও তাদের ফ্ল্যাগশিপ ফোনগুলোতে ফাইভ ন্যানোমিটারের প্রসেসর ব্যবহার করবে শোনা যাচ্ছে। ডেভেলপাররা নতুন এই সক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে নানান ধরনের অ্যাপ নির্মান করবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। অর্থাৎ, ২০২১ সালে স্মার্টফোন আরও স্মার্ট হয়ে উঠবে।

অর্থসূচক/কেএসআর