বাবরি মসজিদ ধ্বংস ‘পরিকল্পিত নয়’, সব আসামি খালাস

প্রায় তিন দশক ধরে চলে আসা বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় অভিযুক্ত সকলকেই খালাস করল ভারতের একটি আদালত। প্রবীণ বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদভানি, মুরলিমনোহর জোশী, উমা ভারতীর মতো নেতা-নেত্রীদের বিরুদ্ধে মসজিদ ভাঙার ষড়যন্ত্র, পরিকল্পনা ও করসেবকদের উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ ছিল। তবে ভারতের আদালত তাদের এ অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে।

আজ বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালতে সেই মামলার রায় ঘোষণা করতে গিয়ে বিচারক সুরেন্দ্রকুমার যাদব জানান, অভিযুক্তদের কারও বিরুদ্ধে উপযুক্ত কোনও প্রমাণ মেলেনি। তাই তাদের বেকসুর খালাস করা হল।

তবে মন্দির ভাঙায় উৎসাহ জোগানোর পরিবর্তে অভিযুক্তরা মন্দির ভাঙায় বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন বলেও জানিয়ে দেন বিচারক। এমনকি তদন্তকারীরা আভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যে প্রমাণ জোগাড় করেছিলেন, সেগুলি বিকৃত করা হয়েছিল বলেও মন্তব্য করেন বিচারপতি।

ভারতের প্রধান রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) তৎকালীন নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানীর নেতৃত্বে ১৯৯২ সালে অযোধ্যায় দফায় দফায় রথযাত্রা হয়। এই রথযাত্রা থেকে ষোড়শ শতাব্দীর অন্যতম এই মুসলিম স্থাপনায় হামলা চালানো হয়।

কট্টরপন্থী উগ্র হিন্দুত্ববাদী করসেবকরা মসজিড় গুঁড়িয়ে দেয়। এ ঘটনার পরপর দেশটিতে হিন্দু-মুসলিম সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হয়। এতে প্রাণ যায় প্রায় ৩ হাজার মানুষের।

উত্তরপ্রদেশের এই মসজিদ ধ্বংস বদলে দেয় ভারতের রাজনীতি। মসজিদ ধ্বংসের সঙ্গে জড়িত বিজেপির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও শীর্ষ নেতা লাল কৃষ্ণ আদভানী, মুরালি মনোহর যোশী, সাবেক মন্ত্রী উমা ভারতী ও কল্যাণ সিংয়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়।

অর্থসূচক/কেএসআর