করোনায় আক্রান্ত শামীম ওসমানের স্ত্রী

করোনাকালে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানো জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা পজিটিভ হওয়ার দিনও তিনি সড়ক দুর্ঘটনায় পঙ্গু হওয়া এক সিএনজি চালকের দরিদ্র পরিবারকেও পৌঁছে দিয়েছেন আর্থিক সহায়তা।

লিপি ওসমানের সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তার পুত্রবধূ ও নাতি। এই কঠিন মুহুর্তে নিজের স্ত্রী ও পরিবারের জন্য ‘দোয়া ভিক্ষা’ চেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান।

বুধবার সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করে শামীম ওসমান বলেন, তিন দিন আগে পরিবারের সবার করোনা পরীক্ষার পর আমার স্ত্রী লিপি ওসমান, পুত্র অয়ন ওসমানের স্ত্রী এবং নাতির কোভিড-১৯ ধরা পড়েছে। পরিবারের বাকি সদস্যদের অবশ্য করোনা নেগেটিভ এসেছে।

শামীম ওসমান বলেন, আল্লাহর ইচ্ছা ছাড়া কিছুই সম্ভব না। তিনি রোগ দিয়ে আমাদের পরীক্ষা করেন, আবার তিনিই সেফা দান করেন। আক্রান্ত সবাই আল্লাহর রহমতে এখনও পর্যন্ত সুস্থ আছে।

তিনি বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জবাসীসহ পুরো দেশের মানুষের কাছে আমার পরিবারের সুস্থতায় ‘দোয়া ভিক্ষা’ চাইছি। কারও না কারও দোয়ায় আল্লাহ রাব্বুল আল আমিন দোয়া কবুল করবেন ইনশাআল্লাহ।

জানা গেছে, করোনার হটস্পটখ্যাত নারায়ণগঞ্জে লকডাউনের শুরু থেকেই সাধারণ মানুষের পাশে যে কয়েকজন ব্যক্তিগতভাবে পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, তাদের মধ্যে সালমা ওসমান লিপি অন্যতম।

যখনই খবর পেয়েছেন কিংবা গণমাধ্যমে কোনো অসহায় মানুষের সংবাদ প্রকাশ হয়েছে, লিপি ওসমান নিজেই ছুটে গেছেন। কখনও আবার পাঠিয়েছেন তার প্রতিনিধি। দিয়েছেন সাহস, করেছেন সার্বিক সহযোগিতা।

গত মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে এ পর্যন্ত তিনি প্রায় তিন হাজার দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

করোনায় আক্রান্ত বহু পরিবার ও তাদের সন্তানদের দায়িত্ব নিয়ে তিনি হয়ে ওঠেন সাধারণ মানুষের কাছে মমতাময়ী। প্রায় এক হাজার মধ্যবিত্ত পরিবারকে গোপনে অর্থ ও উপহারসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন এ নারী।

এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নানা আবেদনে সাড়া দিয়ে তিনি শত শত পরিবারে হাসি ফুটিয়েছেন। একটি বেসরকারি চ্যানেলের লাইভ টকশোতে গিয়েও তিনি এক দরিদ্র পরিবারকে ৫ লাখ টাকা অনুদান দেন।

ফুটবলার আরিফ হাওলাদার, নিপুর মতো অসহায় ক্রীড়াবিদের পাশেও যেমন দাঁড়িয়েছেন, তেমনি সরকারি হাসপাতালে বেড, অক্সিজেন প্রদান করে চলেছেন।

অর্থসূচক/এমএস