ভারতে করোনায় মৃত প্রায় ৮০ হাজার

ভারতে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় ৯২ হাজার ৭১ জন আক্রান্ত হয়েছে। একইসময়ে ১ হাজার ১৩৬ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এক পরিসংখ্যানে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে।

ভারতীয় সরকারি তথ্য মতে, দেশটিতে এ পর্যন্ত মোট ৪৮ লাখ ৪৬ হাজার ৪২৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং ৭৯ হজার ৭২২ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মোট ৩৭ লাখ ৮০ হাজার ১০৭ জন চিকিৎসা থেকে ছাড়া পাওয়ায় বা সুস্থ হওয়ায় বর্তমানে ৯ লাখ ৮৬ হাজার ৫৯৮ জন সক্রিয় করোনা রোগী হাসপাতাল অথবা হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বর্তমানে ভারতে ২০.৩৬ শতাংশ সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছে, ৭৮ শতাংশ চিকিৎসা মুক্ত এবং ১.৬৪ শতাংশ করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল ১৩ সেপ্টেম্বর ৯ লাখ ৭৮ হাজার ৫০০ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। রোববার পর্যন্ত দেশে মোট ৫ কোটি ৭২ লাখ ৩৯ হাজার ৪২৮ জনের নমুনা পরীক্ষা সম্ভব হয়েছে।

এদিকে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি’র (এনআইভি) ডিরেক্টর প্রিয়া আব্রাহম এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কমিউনিকেবল ডিজিস বিভাগের সাবেক নির্দেশক রাজেশ ভাটিয়া জানিয়েছেন, ‘করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে বিশ্বজুড়ে ১৬৫টি ভ্যাকসিনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। এরমধ্যে রয়েছে ভারতের তিনটি। এ বছরের শেষেই ভারতের বাজারে এসে যাবে ওই ভ্যাকসিন।’

তাঁদের কথায়, ‘করোনা ভাইরাস আটকানোর কোনও নির্দিষ্ট ওষুধ নেই। দেশ-বিদেশে করোনা রোগীদের হয় পৃথকভাবে, না হলে রিবাভিরিন, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন, অ্যাজিথ্রোমাইসিন, ডেক্সামেথাসোনের সঙ্গে রেমডিসিভির, ফ্যাবিপিরাভির, লোপিনাভিরের মতো ওষুধ জরুরিকালীন ভিত্তিতে প্রয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু কোভিডের নির্দিষ্ট ওষুধ পাওয়া যায়নি।’

‘প্লাজমা থেরাপি’ করোনায় মৃত্যু রুখতে কিছুটা কার্যকরী হলেও ভারতের বিশাল জনসংখ্যার জন্য তা পাওয়া কঠিন। সেজন্য ভ্যাকসিনই একমাত্র পথ বলে এনআইভি এবং ‘হু’র কর্মকর্তারা মনে করছেন।

অর্থসূচক/এএইচআর