চূড়ান্ত অনুমোদন পেল আওয়ামী নেতাদের পাঁচ বিমা কোম্পানি
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

চূড়ান্ত অনুমোদন পেল আওয়ামী নেতাদের পাঁচ বিমা কোম্পানি

IDRA-27.05.12নতুন আরও পাঁচটি বিমা কোম্পানির চূড়ান্ত  অনুমোদন দিয়েছে বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ। বৃহস্পতিবার সংস্থটির সদস্যদের এক সমন্বয় বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। আর পাঁচটি কোম্পানির উদ্যোক্তাদের মধ্যেই রয়েছেন ক্মতাসীন দল আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য ও প্রভাবশালী নেতারা।

এর আগে গত মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রণালয় থেকে আরও পাঁচটি নতুন বিমার অনুমোদন দেওয়ার জন্য বলা হয়। এরই প্রক্ষিতে বুধবার আইডিআরে এ কোম্পানিগুলোর অনুমোদনের জন্য সম্নয় বৈঠক করে সংস্থাটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। সেখানে এগুলোর কাগজ পত্র যাচাই বাচাই করার করেন তারা। যাচাই বাচাই শেষ না হয় বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা পর্যন্ত বৈঠকটি স্থগিত করা হয়। আবারও বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসেন তারা। ওই বৈঠকে পাঁচটি নতুন বিমা কোম্পানির চুড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।

অনুমোদন পাওয়া কোম্পানিগুলো হচ্ছে, আলফা ইসলামী লাইফ, স্বদেশ লাইফ ইনস্যুরেন্স, ট্রাস্ট ইসলামী লাইফ, যমুনা লাইফ ইনস্যুরেন্স ও ডায়মন্ড লাইফ ইনস্যুরেন্স।

এ বিষয়ে আইডিআরের সদস্য ফজলুল করিম অর্থসূচককে বলেন, আজকের বৈঠকে আমরা নতুন বিমা কোম্পানির চুড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছি। এর আগে আমরা আরও ১১টি বিমার অনুমোদন দিয়েছিলাম। এখন নতুন অনুমোদন পাওয়া বিমার সংখ্যা হলো ১৬টি।

একটি সূত্র জানায় তালিকা অনুযায়ী, রাজশাহী-৬ আসনের সাংসদ শাহরিয়ার আলম সুপারিশে আলফা ইসলামী লাইফের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে। আর কর্ণধার হলো তৈরি পোশাক ব্যবসায়ীর নাজিমউদ্দিন আহমেদ । আর স্বদেশ লাইফের লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরীকে।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফের সুপারিশে ট্রাস্ট ইসলামী লাইফের লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী আওয়ামী লীগের নেতা জাকের আহমেদ ভূঁইয়াকে। আর যমুনা লাইফ ইনস্যুরেন্সের জন্য সুপারিশ করেছেন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের ছেলে ভৈরবের সাংসদ নাজমুল হাসান। এটি দেওয়া হচ্ছে চট্টগ্রাম অঞ্চলের আওয়ামী লীগের সাংসদ মোশাররফ হোসেন। এ ছাড়াও ডায়মন্ড লাইফ ইনস্যুরেন্সের লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্নাকে।

প্রসঙ্গত, আগে ৪২টি সাধারণ বিমা, ১৭টি জীবন বিমা ও একটি বিদেশি জীবন বিমা মেটলাইফ অ্যালিকো এবং সরকারি সংস্থা সাধারণ বিমা করপোরেশন ও জীবন বিমা করপোরেশন নিয়ে ছিল দেশের বিমা খাত।
আইডিআরএ সূত্রে জানা যায়, এর পর নতুন করে বিমা কোম্পানি অনুমোদন দেওয়ার উদ্দেশে গত ১০ ফেব্রুয়ারি বিমাকারির নিবন্ধন প্রবিধানমালা-২০১৩ গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়।

গেজেট প্রকাশের পর ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত নতুন বিমা কোম্পানির নিবন্ধনের জন্য আইডিআরএ’র পক্ষ থেকে আবেদনপত্র চাওয়া হয়। এরপর পরবর্তীতে তিন দফা সময় বাড়িয়ে ১৫ মে পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়।

এই সময়ের মধ্যে মোট ৭৭টি আবেদন জমা পড়ে। আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই করে গত ৪ জুলাই আইডিআরএ প্রাথমিকভাবে ১১টি নতুন বিমা কোম্পানির অনুমোদন দেয়। এরমধ্যে ৯টি জীবন বিমা ও ২টি সাধারণ বিমা কোম্পানি।

প্রাথমিকভাবে অনুমোদন পাওয়া ৯টি জীবন বিমা কোম্পানির মধ্যে সাজ্জাদ মোস্তফা মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফের, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল হাফিজ মল্লিক বেস্ট লাইফের, নূর ই হাফিজ সোনালী লাইফের, কাতসুহিডে তানাকা সামিট লাইফের, স্যামুয়েল এস চৌধুরী গার্ডিয়ান লাইফের, মো. আব্দুল আহাদ এনআরবি গ্লোবাল লাইফের, মো. আব্দুস শহিদ চাটার্ড লাইফের, ও ফরিদা নাহার লাইলী জেনিট ইসলামী লাইফের এবং রাশেদ মুরাদ ইব্রাহীম প্রটেকটিভ লাইফের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন।

সাধারণ বিমা কোম্পানি দুটির মধ্যে সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. শামছুল হক এবং সিকদার ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন মোমতাজুল হক। এর পর আবারও দ্বিতীয় দফায় দেওয়া হলো আরও পাঁচটি জীবন বিমার অনুমোদন।

জিইউ

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ